অমরীশ পুরী। নামটা-র সঙ্গে যেন জুড়ে রয়েছে বলিউড। আশি-র দশকের সেরা ভিলেন। তাঁর ভিলেনগিরি-তে এতটাই মুন্সিয়ানা থাকত যে মনেই হতো না এটা সিনেমা। অমরীশ পুরী মানে একটা জাত বজ্জাত ও শয়তান বলেই বোধ করত অধিকাংশ সিনেমাপ্রেমী। বিশেষ করে তাঁর অভিনীত চরিত্র মোকাম্বো ভারতীয় চলচ্চিত্রে একটা কাল্ট-এ পরিণত হয়েছে। এহেন অমরীশ পুরীর নাতি এবার সিনেমাতে। বলিউডে নায়ক হিসাবে-ই অভিষেক ঘটাচ্ছেন অমরীশ পুরীর নাতি বর্ধন পুরী। 

বলতে গেলে বর্ধন হচ্ছেন বলিউডে অমরীশ পুরী-দের থার্ড জেনারেশন। ক্যানসারে ভুগে কয়েক বছর আগেই প্রয়াত হয়েছেন অমরীশ পুরী। বলিউডে-র এক কিংবদন্তি চরিত্র ছিলেন তিনি। কিন্তু, তাঁর প্রয়াণের সময় বলিউডের কেউ-ই ছিলেন না। এক মহান অভিনেতা অবহেলা আর সতীর্থদের বঞ্চনার শিকার হয়েছিলেন। অমরীশ পুরীর নাতি-র সৌম্যকান্ত চেহারা অনেক সময়ই বলিউডের প্রতিভাশালী অভিনেতা কার্তিক আরিয়ান-এর লুকের সঙ্গে ভুল করিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। 

বর্ধন পুরীর অভিষেক সিনেমার নাম 'ইয়ে শালি আশিকি'। তাঁর বিপরীতে রয়েছেন শিবলেকা ওবেরয়। এছাড়াও রয়েছেন কয়েকজন পরিচিত মুখ। 'ইয়ে শালি আশিকি'-র কাহিনি এগিয়েছে সাসপেন্স থ্রিলারে ভরসা করে। 'ইয়ে শালি আশিকি'-র যে ট্রেলার এখন পর্যন্ত প্রকাশ করা হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে সাহিল বলে এক কলেজ ছাত্র-কে। অভিযোগ, সে তার প্রেমিকা প্রীতি-কে প্রাণে মেরে ফেলার ভয় দেখাচ্ছে। প্রীতি সাফ বলে দেয় সাহিলের সঙ্গে তার কোনও দিনই প্রেমের সম্পর্ক ছিল না। সত্যি কথা কে বলছে সাহিল না প্রীতি? এই নিয়ে এগিয়ে চলে ছবির কাহিনি। 

ছবির ট্রেলার বেশ নাটকীয়ভাবে তৈরি করা হয়েছে তাতে কোনও সন্দেহ নেইয ভায়োলেন্স এবং অ্যাকশনও রাখা হয়েছে ভরপুর। ট্রেলারে দুই নায়িকার এক্সপ্রেশনও বেশ মানানসই লেগেছে। দুরন্ত ট্রেলার লঞ্চের পর ছবির মুখ থুবড়ে পড়ার তালিকা বেশ দীর্ঘ। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি ছবি ট্রেলার লঞ্চে দুরন্ত রেটিং পেলেও মুক্তি পর তা বক্স অফিসে তেমন কোনও লক্ষ্মীলাভ করতে পারেনি। তবে, সলমন খান-দের মতো স্টারদের ছবির আলাদা একটা বাজার রয়েছে। যে বাজারে সলমন-এর উপস্থিতিটাই বড়। সিনেমা কেমন হল তা নিয়ে সল্লু ভক্তরা ভাবতে রাজি নন। তাই 'ভরত'-এর ট্রেলার বেশ আকর্ষণ তৈরি করলেও, ছবিটির মান ছিল অত্যন্ত নিম্ন। কিন্তু, কয়েকশ কোটির ক্লাবে 'ভরত'-এর প্রবেশ করাটা আটকায়নি। কিন্তু, অমরীশ পুরীর নাতি বর্ধন কাপুর সলমন খান এখনও হননি। তাই ট্রেলারের দুরন্ত অ্যাকশন আসল ছবিতে কতটা নাটকীয়তা এবং দর্শকদের মন পাওয়ার মতো জায়গায় পৌঁছছে সেটাই এখন দেখার। 

সন্দেহ নেই  'ইয়ে শালি আশিকি'-র মূল আকর্ষণ হচ্ছেন অমরীশ পুরীর নাতি। যাঁর দাদু বলিউডের একজন কিংবদন্তি অভিনেতা তার কাছে এইটুকু প্রত্যাশা যে থাকবে তাতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। ২২ নভেম্বর মুক্তি পাচ্ছে 'ইয়ে শালি আশিকি'। আর এই ছবি-কে ঘিরে সিনেমাপ্রেমীদের কাছে বারবার ফিরে আসছে অমরীশ পুরী নস্টালজিয়া। বর্ধন যাতে ঠাকুর্দার মতো একজন বলিষ্ঠ অভিনেতা হিসাবে আত্মপ্রকাশ করতে পারে সেটাই এখন চাইছেন সকলে।