করোনাকালে আরও একটি দুঃসংবাদ। যোধপুর পার্কের বাড়ি থেকে উদ্ধার হল অভিনেত্রী আরিয়া বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃতদেহ। কী কারণে মৃত্যু তা এখনও স্পষ্ট নয় পুলিশের কাছে। এই অভিনেত্রীর মৃত্যু নিয়েও তৈরি হয়েছে রহস্য। কারণ এদিন সকালেই তাঁকে তাঁর বাড়ির ঝুল বারান্দায় দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। সকাল ১০টার পর তাঁর সঙ্গে আর কোনও রকম যোগাযোগ করা যায়নি। 

পুলিশ জানিয়েছে এদিন বেলা ১০টা নাগাদ পরিচারিকা তাঁর বাড়িতে আসেন। কিন্তু বারবার ডাকা সত্ত্বেও আরিয়া বন্দ্যোপাধ্যায় দরজা খোলেননি। এরপরই সেই খবর তিনি প্রতিবেশীদের বলেন। প্রতিবেশীরাও মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। বারবাপ ফোন রিং হয়ে কেটে যায়। তারপরই খবর দেওয়া হয় পুলিশে। পুলিশ এসে উদ্ধার করে মৃতদেহ। ঘটনাস্থলে রক্তের দাগ ছিল। কিন্তু আরিয়ার শরীরে কোনও রকম আঘাত পাওয়া যায়নি বলেও জানান হয়েছে পুলিশের তরফে। মৃত্যুর আগে তিনি বমি করেছিলেন বলেই মনে করছে তদন্তকারীরা। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে কোনও কিছু অতিরিক্ত পরিমাণে খেয়ে ফেলার কারণেই মৃত্যু হয়েছে।  

সেতার বাদক নিখিল বন্দ্যোপাধ্যায়ের মেয়ে আরিয়া। কলকাতাতেই জন্ম। তাঁর আসল নাম ছিল দেবদত্তা। পরবর্তীাকলে তিনি নিজেই নাম পরিবর্তন করে আরিয়া নামটি ব্যবহার করেন। দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের লাভ সেক্স অউর ধোকা ছবি দিয়ে বলিউডে পথচলা শুরু। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে স্নাতক তিনি।  ডার্টি পিকচারেও তাঁকে দেখা গিয়েছিল। প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন কারও সঙ্গে খুব একটা কথা বলতেন না আরিয়া। পোষ্য কুকুরটিকে নিয়েই বেশিরভাগ সময় কাটাতেন।  পুলিশ জানিয়েছে ময়না তদন্তের রিপোর্ট এলেই স্পষ্ট হবে কী করে মৃত্যু হয়েছে আরিয়ার।