রমরমিয়ে চলছে পর্নোগ্রাফি। ভারতে যেখানে নীল ছবি কিংবা পর্নোগ্রাফি নিষিদ্ধ থুড়ি নিষিদ্ধ বললেই ভুল, ধরা পড়লেও জেল ছাড়াও কঠোর শাস্তি হতে পারে এইসব কিছু জানা সত্ত্বেও লুকিয়ে লুকিয়ে পর্নোগ্রাফি বানাচ্ছিলেন বলিউডের এক পরিচালক। মুম্বইতে একটি বাংলো ভাড়া নিয়েই তৈরি হচ্ছিল নীল ছবি।

আরও পড়ুন-প্রিয়ঙ্কা চোপড়ার সংসারেই এবার ঢুকে পড়লেন জ্যাকলিন, কেন এই সিদ্ধান্ত সলমনের নায়িকার...

সূত্রের খবর, অনেকদিন ধরেই পুলিশের সন্দেহ ছিল এই বাংলোর উপর।  এবং সন্দেহ যেন সত্যি প্রমাণিত করল। মাঝে  মধ্য়েই  এই বাংলোর মধ্যে উঠতি মডেল-তারকারা আসতেন। সঙ্গে থাকত লাইট-ক্যামেরা-ল্যাপটপ। তারপরেই সকলে মিলে চলতে অশ্লীল শুটিং। পুলিশ ছাড়াও লোকজনেরও সন্দেহ তীব্র ছিল। এবং সেখানকার লোকেরাই পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছিলেন। তারপরই পুলিশি হানায় পুরো বিষয়টি সকলের সামনে আসে।

 

জোরকদমে চলছিল অশ্লীল দৃশ্যের শ্যুটিং। শুক্রবারই পুলিশ গিয়ে হানা দেয় ওই বাংলোয়। তারপরই পুলিশের হাতেনাতে ধরা পড়ে পরিচালক-লাইটম্যান-দুই ক্যামেরাম্যান। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয় সাড়ে ৫ লক্ষ টাকার ক্যামেরা-ল্যাপটপ- মোবাইল। সূত্রের খবর, পরিচালকের অ্যাকাউন্টে ৩৬ লক্ষ টাকা ছিল, তাও বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। মডেলকে জেরা করায় তিনি জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন ধরেই লুকিয়ে পর্নোগ্রাফি শ্যুট করছিলেন তারা। এবং তা সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে টাকা রোজগার করতেন। এমনকী মোটা টাকার বিনিময়ে পার্সোনাল মেসেজেও পাঠানো হতো নোংরা ভিডিওগুলি। তারপরেই বলি পরিচালক-মডেল সহ সকলকেই গ্রেফতার করা হয়েছে।