রাত পোহালেই প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে চলেছে সাহো ছবি। বহু প্রতিক্ষিত এই ছবি মুক্তির আগেই তা চর্চার কেন্দ্রে এসেছে বহুবার। প্রভাস-শ্রদ্ধা জুটিই হোক বা বাহুবলীর নয়া লুক। ছবির খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই দর্শকদের মধ্যে তাকে ঘিরে উত্তেজনার পারদ চড়ে ছিল পুরোদমে। সেই ছবি মুক্তির আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় জুড়ে দেখা দিল বক্স অফিস  প্রেডিকশন। 

আরও পড়ুনঃ খানের সিদ্ধান্তে নাজেহাল আলিয়া! হচ্ছে না ইনশাল্লাহ, বিপাকে আলিয়া

ছবির বাজেট ৩০০ কোটি টাকা। ফলে এই ছবিকে ঘিরে প্রযোজক সংস্থারও পরিকল্পনা অনেক। সেই কথা মাথায় রেখেই পিছিয়ে ছিল ছবি মুক্তির দিন। ১৫ই অগাস্টই মুক্তির কথা এই ছবির। কিন্তু বাটলা হাউস ও মিশন মঙ্গল মুক্তি পাওয়ায় এই ছবির মুক্তি পিছিয়ে ছিল দুসপ্তাহ। ছবির কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৭ সাল থেকেই। গ্রাফিক্স থেকে ভিস্যুয়াল এফেক্ট সব দিক থেকেই ছবিটিকে ভিন্ন স্বাদ দিতে পরিচালক থেকে প্রযোজক মুকিয়ে ছিলেন দুবছর ধরে। তবে বর্তমানে ভারতের বক্স অফিসে বিভিন্ন ছবির নজির গড়া সাফল্য লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 

আরও পড়ুনঃ বলিউডে আরও এক নতুন জুটি, আসছে অনন্যা পান্ডে ও ইশান খট্টরের পরবর্তী ছবি

মুম্বই ও হায়দরাবাদ ছাড়া এই ছবির শুটিং হয়েছে অস্ট্রিয়া, আবু ধাবি, দুবাই, রোমানিয়া এবং ইউরোপের বিভিন্ন এলাকায়। ফলে সেই ছবি যে দর্শকদের মনে পৌঁচ্ছে দিতে হবে তা নিশ্চিত করতেই ঢেলে সাজানো হয়েছে সাহোকে। তবে বাস্তবে তা কতটা প্রভাব ফেলবে তার উত্তর মিলবে আগামী দুসপ্তাহতেই। 

আরও পড়ুনঃ বিয়ের আগেই দিলেন সুখবর! বেবি বাম্প-এর ছবিতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুললেন এই নায়িকা

ইতিমধ্যেই মিশন মঙ্গল-এর ঝড়ে কাবু ভারতের দর্শক। তারই মাঝে প্রকাশ্যে আসছে সাহো। এখন দেখার, কার দৌর কত দূর। প্রভাস, অক্ষয় ও জন লড়াইয়ে শেষ হাঁসি হাসবে কে! তার উত্তর না মিললেও পাওয়াগেল প্রেডিকশন। সারা দেশ জুড়ে ৫৫০০ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে এই ছবি। সেখান থেকেই অনুমান করা হয় যে প্রথমদিনই ৬০ কোটি। যদি শুরুটা হয় এইরূপ, তবে এক কথায় বলাই চলে এই ছবি ব্লকবাস্টার হতে বেশি সময় নেবে না।