ট্রেলার মুক্তি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আশঙ্কা যেন সত্যি হল।  রাজ এবং ডিকে পরিচালিত ওয়েবসিরিজ  'দ্য ফ্যামিলি ম্যান ২'-তে অভিনেতা মনোজ বাজপেয়ীকে নিয়ে টানটান উত্তেজনা তুঙ্গে।  বহু প্রতীক্ষিত ওয়েব সিরিজ,  ট্রেলারের প্রতিক্রিয়া, সামান্থার  চরিত্র  নিয়ে বিতর্ক, এবং সিরিজের আরও অন্যান্য বিষয় নিয়ে এবার এশিয়ানেট নিউজের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় বলি অভিনেতা মনোজ বাজপেয়ী।

আরও পড়ুন-ফিরিয়ে দিয়েছেন অগ্রিম ২ কোটি টাকা, করণের পর এবার শাহরুখের 'ফ্রেডি', কেন বাদ পড়লেন কার্তিক...

অভিনেতা হিসেবে কতাটা সফল মনোজ বাজপেয়ী, তা আর নতুন করে বলার কিছুই নেই। মনোজ বাজপেয়ী তার অসাধারণ অভিনয় দক্ষতা দিয়ে দর্শকদের বিনোদনে কোনও ত্রুটি রাখেননি। এর আগেও নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছিলেন মনোজ। ২০১৯ সালেই থ্রিলার সিরিজ 'দ্য ফ্যামিলি ম্যান'-এক মধ্যবিত্ত মানুষ শ্রীকান্ত তিওয়ারির গল্প বর্ণনা করেছিল। যেখানে একজন বিশ্বমানের গুপ্তচর হিসাবে দায়িত্ব পালন এবং দক্ষতার সাথে তাঁর পারিবারিক দায়িত্ব পালন করেছিলেন মনোজ বাজপেয়ী। 'দ্য ফ্যামিলি ম্যানের' প্রথম সিরিজের সাফল্যের পরেই দ্বিতীয় সিরিজটি আগামী ৪ জুন মুক্তি পাবে অ্যামাজন প্রাইমে। 

 

 

এবার ওয়েব সিরিজের দ্বিতীয় সিজনে  দক্ষিণী অভিনেত্রী সামান্থা আক্কেনেনিকে একজন টেরোরিস্টের ভূমিকায় দেখা যাবে। সামান্থার চরিত্রের নাম রাজ্জি। ইতিমধ্যেই  'দ্য ফ্যামিলি ম্যান ২' এর ট্রেলারটি ৪ কোটিরও বেশি ভিউ পার করেছ। এবং  ওয়েব সিরিজ  নিয়ে মনোজও নিজের ভাবনা- উত্তেজনা শেয়ার করেছে।  মনোজ জানিয়েছেন, 'আমরা পুরোপুরি চাঁদ পেরিয়েছি, উত্তেজিত এবং সমস্ত দিক থেকে যে পরিমাণ ভালবাসা আসছে তা দেখে সত্যিই খুব অবাক হচ্ছি। আমি অনেক ফিল্মের অংশ। কিন্তু এখন যেটা মনে হচ্ছে 'Satya'time.হঠাৎ পুরো দেশ যেভাবে সিজন ২ -এর জন্য পাগল হচ্ছে এবং দর্শকদের কাছ থেকে যে প্রশংসা ও কৌতূহল এসেছে তা অসম্ভব ভাল। 

 

 

রহস্য-রোমাঞ্চে পরিপূর্ণ থ্রিলার সিরিজের ট্রেলারে একজন গুপ্তচর এবং ফ্যামিলি ম্যানের ভারসাম্য যেভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন মনোজ, তা সত্যিই প্রশংনীয়। এটা করতে কীভাবে সক্ষম হয়েছেন মনোজ তিওয়ারি তাও জানিয়েছেন অভিনেতা নিজেই।  মনোজ বলেছেন, 'এটি সত্যিই ফুটিয়ে তোলাটা ভীষণই জটিল প্রচুর পরিশ্রম করলে তাহলেই এটা সম্ভব। শ্রীকান্ত তিওয়ারির চরিত্র হিসাবে সর্বদা বিকশিত হওয়া, নির্দিষ্ট পরিস্থিতির দিকে নিক্ষেপ করা, এবং তিনি সকলের সাথে বুদ্ধিমান এবং ভারসাম্যপূর্ণ আচরণ করেন। আমার জন্য, তিনি একজন সাধারণ মানুষ যিনি লোকাল ট্রেনগুলিতে যাতায়াত করেন এবং চাকরিতে নিজের ১০০ শতাংশ দেন। এবং এইভাবেই তিনি ব্যর্থ হন আবার  সফলও হন, আর এটাই হল আসল চ্যালেঞ্জ'।

 

 

ট্রেলার প্রকাশ পেতেই  নানা সমস্যার মুখে পড়ে নির্মাতারা। ট্রেলারে নাকি তামিলদের নেতিবাচক ভাবে দেখানো হয়েছ। এই অভিযোগ এনে ছবির উপর নিষেধাজ্ঞার দাবি জানিয়েছেন তামিলনাডুর এমডিএমকে নেতা এবং রাজ্যসভার সাংসদ ভাইয়াপুরি গোপালস্বামী । নিষেধাজ্ঞার আর্জি জানিয়ে প্রকাশ জাভড়েকরকেও চিঠি দিয়েছে ভায়কো।  মুক্তির আগেই বিতর্কে শেষমেষ মুখ খুলেছেন মনোজ বাজপেয়ী। মনোজ জানিয়েছেন, তামিলিয়ানদের ভাবমূর্তি নষ্ট নয়, ওয়েব সিরিজটি না দেখে যে প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে তা কোনভাবেই মেনে নিতে পারছি না। সিরিজটিতে এমন কিছু নেই যা কাউকে ক্ষুব্ধ করতে পারে। এছাড়া তামিল দর্শকদের ছবিটি বয়কট না করে দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি আর বলেছেন রাজ ও ডি কে ছবির নির্মাতারা তামিলিয়ান, অভিনেত্রী সামান্থা , প্রিয়ামনি এবং ছবির লেখক সুমনও একজনে তামিলিয়ান, এছাড়াও আরও চার থেকে পাঁচ জন যারা এই সিরিজের অংশ তারাও হলেন তামিলিয়ান। সুতংরাং তামিল সংস্কৃতির উপর যাকে কোনও আঘাত না আসে তার চেষ্টাই আপ্রাণ করেছে সকলে।

শ্রীকান্ত তিওয়ারির এই সিজনের চরিত্র নিয়ে  মনোজ বলেছেন,'সিজন ২-তে অনেক নতুন কিছু রয়েছে। শ্রীকান্তকে এমন অনেক চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়েছে যা আগে কখনও মুখোমুখি হতে হয়নি।  একাধারে যেমন পেশাদার গোয়েন্দা তেমনি আবার সাধারণ ফ্যামিলি ম্যান। নিজের ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার জন্য  তার যে সংগ্রাম সেটাই এই সিজন ২ আর ভাল করে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে'।

 

 

মনোজ বাজপেয়ী অন-ফিল্ড স্পাই হওয়ার পরও কি তার পরিবারের কাছে গোপনীয়তা রাখতে সফল হবে?সিজন ২-তে কি  রহস্য জিইয়ে  রাখতে পারবেন মনোজ? এর উত্তরে মনোজ বলেছেন, 'তার পরিবারের লোক জানে যে তিনি ডেস্কের কাজ করেন, কিন্তু তারা কেউই জানে না তার পেশাদারি গোয়েন্দার কথা। শ্রীকান্তর জীবনে এর পর কী ঘটতে চলেছে তা জানার জন্যই অবশ্যই দেখতে হবে দ্য ফ্যামিলি ম্যান সিজন ২'।

 

 

সামান্থা আক্কেনেনির সঙ্গে কাজ করার বিষয়ে  মনোজ বলেছেন,'সামান্থা কেবল তামিল ও তেলেগু তারকাই নন, তিনি অত্যন্ত পরিশ্রমী অভিনেতা। তিনি যে কঠোর পরিশ্রমের মধ্যে নিজের অবস্থানকে ন্যায্যতা দেন। আমি যে তীব্রতা তার মধ্যে দেখেছি তা অসাধারণ এবং অভূতপূর্ব। এই ধরণের কোনও বিশাল সাফল্য সহজেই আসে না, এবং একজনকে সব কিছু দিতে হয়, এবং এটিই আমি তার কাছ থেকে শিখেছি'।