নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকির বিষয় নয়া অভিযোগ নিয়ে হাজির হলেন স্ত্রী আলিয়া। অভিনেতা তাঁকে একবার মনোজ বাজপেয়ীর সামনে অপমান করেছিলেন। সকলের সামনে তাঁকে নিয়ে আসতে বারণ করতেন নওয়াজ। আর পাঁচ অভিনেতাদের মত নিজের স্ত্রীকে নিয়ে মিডিয়ার সামনে আসা পছন্দ করতে না নওয়াজ। নিজের সন্তানদের ডিভোর্স ফাইল করার বিষয় কিছুই জানাননি আলিয়া। তিনি এও জানান, নওয়াজ নিজেরই সন্তানদের সঙ্গে দেখা না করার ছুত খুঁজতেন। আলিয়া কেবল নওয়াজের বিরুদ্ধে নয়, তাঁর ভাই শামাসের বিরুদ্ধে মানসিক এবং শারীরিক অত্যাচারের অভিযোগ এনেছেন। আলিয়া জানান, "আমায় প্রতিনিয়ত অপমান করেছে নওয়াজ। আমি কিছু পারি না, জানি না, ড্রেসিং সেন্স নেই, আমায় নিয়ে কারও সামনে যাওয়া যায় না, আমায় সকলের সামনে নিজের স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে লজ্জা পেত।"

প্রসঙ্গত ট্যুইটারে প্রবেশ করতে না করতেই একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে চলেছেন নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকির স্ত্রী আলিয়া সিদ্দিকি। ট্যুইটারে আজই অ্যাকাউন্ট খুলেছেন আলিয়া। তবে এই অ্যাকাউন্ট খোলার পিছনে রয়েছে অন্য কাহিনি। ট্যুইটারে আসার কারণ একটাই। সত্য ফাঁস করবেন তিনি। নিজের প্রথম ট্যুইটে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন আলিয়া। চারিদিকে গুঞ্জন, অন্য ব্যক্তির সঙ্গে প্রেমের কারণেই নওয়াজকে ডিভোর্স দিচ্ছেন আলিয়া। তাঁর কথায়, তাঁর চরিত্রে না জেনেই কিংবা ইচ্ছাকৃতভাবে দাগ লাগানো হচ্ছে। তিনি কারও সঙ্গে কোনও সম্পর্কে নেই। একের পর এক ট্যুইটে ক্রমশ বেড়েই চলেছে জল্পনা।

প্রথম ট্যুইটে তিনি বলেন, ওনাকে একরকম জোর করা হয়েছিল সত্যি চেপে রাখার জন্য। কিন্তু নিজের ক্ষমতা দেখিয়ে কখনও সত্যকে চাপা দেওয়া যায় না।
তিনি এও লেখেন, যে কোনও ব্যক্তির সঙ্গে তিনি সম্পর্কে লিপ্ত হননি। যে সকল সংবাদমাধ্যম তাঁর বিষয় এমন খবর লিখছেন তা সব মিথ্যে। তাঁর ছবি ভুল ভাবে ক্রপ করে ব্যবহৃত হয়েছে। প্রত্যেকটি সংবাদমাধ্যমকে ট্যাগ করে তিনি আসল ছবিগুলি পোস্চ করেছেন। যেখান থেকে তাঁকে ক্রপ করে ভুলভাবে ব্যহার করা হয়েছে। তাঁর দাবি, এই ছবি থেকে তাঁর চরিত্র নিয়ে মিথ্যে ছড়ানো হচ্ছে।