আরও পড়ুনঃ কবীর সিং-এ শুধুই নারীবিদ্বেষ! সমালোচনায় সরব তপসিকবীর সিং নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। বক্স অফিসে রমরমিয়ে চললেও এই ছবির গায়ে লেগেছে নারীবিদ্বেষী-র তকমা। এত দিন এই বিষয়ে বিশেষ কথা বলেননি শাহিদ কাপুর। এবার এই বিষয়ে মুখ খুললেন তিনি। বলা ভাল, কিছুটা ক্ষোভই প্রকাশ করলেন এক সংবাদমাধ্য়মের কাছে। 

শাহিদ বলেন, লোকজন এত কথা বলার পরেও বক্স অফিসে এই ছবি ব্লকবাস্টার। তা হলে লোকে কী ভাবছে বা বলছে, তা নিয়ে কি আমার কি মাথা ঘামানো উচিত! 

এক মাস হয়ে গিয়েছে কবীর সিং-এর মুক্তির। কিন্তু তার পরেও সমালোচনার রেশ কমেনি। এ বিষয়ে শাহিদ রীতিমতো রেগেই বলেন, আমরা কে কোনও চরিত্র বিচার করার! আমরা চরিত্রকে বিচার করবই বা কেন। এটা দ্বিচারিতা। হলিউডে হলে সবাই মুগ্ধ হয়ে যায়। কিন্তু এখানে কেউ কিছু করলেই সমালোচনার মুখে পড়তে হয়।

কবীর সিং চরিত্রটি তার প্রেমিকার গায়ে হাত তোলে। তার বাড়িতে গিয়ে সমস্যা তৈরি করে। অচেনা মহিলাকে যৌনতার প্রস্তাব দেয়। এর জন্য়ই অনেকে দাবি করেছেন, এই ছবিতে নারীবিদ্বেষকে গৌরবান্বিত করা হয়েছে।  গায়িকা সোনা মহাপাত্র ও অভিনেত্রী তপসি পন্নুও একই সুরে কথা বলেছেন। 

সোনা এমনকী বলেছেন, এত খারাপ একটি চরিত্রয় অভিনয় করার আগে কি অভিনেতার কোনও দায়িত্ব বর্তায় না! 

 

শাহিদ এই প্রসঙ্গে বলেন, কবীর চরিত্রটি রেগে গেলেই সমস্ত তছনছ করে দেয়। সে রাগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন না। প্রেম, পরিবার, কেরিয়ার  সব জায়গাতেই রেগে গিয়ে উল্টোপাল্টা করে ফেলে। কিন্তু এছাড়া ওই চরিত্রের বেশ কিছু ভালো গুণও রয়েছে।  

কবীর তার প্রেমিকা প্রীতিকে চড় মারছে, এউ দৃশ্যটি নিয়েও বিতর্ক হয়েছে। এমনকী, ছবির পরিচালক সন্দীপ রেড্ডি বলেছেন, প্রেমিকাকে চড় না মারা গেলে প্রেমে গভীরতাই নেই। এই চড়ের প্রসঙ্গেও শাহিদ কথা বলেন। তিনি বলেন, কবীর যদি প্রীতিকে চড় না মারত, বাকি কাজগুলো ঠিক করেছে বলে দেওয়া যেত কি! কবীর চরিত্রটাই গ্রহণ করার মতো নয়। আমরা এটাই দেখাতে চেয়েছি চরিত্রটি গ্রহণ করার মতো নয় এবং সে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছে। তাই ছবির দ্বিতীয় অর্ধে তার ব্যর্থতা দেখানো হয়েছে। সে প্যান্টেও  প্রস্রাব করে ফেলে একটা সময়ে। 

প্রসঙ্গত, এক মাস পরেও বক্সঅফিসে ভাল ব্যবসা করছে শাহিদের কবীর সিং। এই ছবি ভারত ও উরি ছবির রেকর্ডও বক্স অফিসে ছাড়িয়ে গিয়েছে।