বাড়ির মেয়ে মানেই লক্ষ্মী। তবে ঠাকুরের আসনে পাতা লক্ষ্মী এবং বাড়ির মেয়ে লক্ষ্মীর মধ্যে কিন্তু আকাশ-পাতাল তফাৎ। এই কথাটা বোধহয় মেয়েদের আর বোঝাতে প্রয়োজন হয় না। তবে এই প্রয়োজনীতাটা কি হওয়ার দরকার নেই। একটু ভেবে দেখুন না। বাড়ির লক্ষ্মী এবং আসনের লক্ষ্মীর মধ্যে তফাৎ থাকবে কেন। এই বিষয়টি বোধহয় চিরকালের বিতর্কিত বিষয়ের মধ্যে একটি। মহিলা মানেই নিজের স্বপ্ন, আশা-আকাঙ্খার জলাঞ্জলি দিয়ে নিজের সংসারে দিয়ে দাও। এই ট্রেনিং মোটামুটি প্রাপ্ত বয়সে পৌঁছনোর আগে থেকেই চলতে থাকে। এই ধরণের নানা বিষয় কথা বললেন বিদ্যা বালন।

আরও পড়ুনঃ১৯৯৩-র মুম্বই হামলার 'জঙ্গি' ও 'দেশদ্রোহি' সঞ্জয়, বায়োপিকে হয়ে উঠলেন হিরো, ধিক্কার চারিদিকে

সাংবাদিক বৈঠকে এবারের বিদ্যা যেন একেবারে অন্যরকম। অপেক্ষার আর মাত্র একদিন। মুক্তি পেতে চলেছে ভারতের গণিতজ্ঞ শকুন্তলা দেবীর বায়োপিক 'শকুন্তলা দেবী'। নাম ভূমিকায় রয়েছেন বিদ্যা। ছবিটি যে কেবল বায়োপিক নয় সে বিষয় বিশদে আলোচনা করলেন অভিনেত্রী। এর আগে এতদিন ছবি সংক্রান্ত নানা কথা বলেছিলেন তিনি। এবারে নারী ক্ষমতায়ন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় বসেছিলেন সিনে শকুন্তলা। তাঁর কথায়, "মহিলাদের সেই ছোট বয়স থেকে শেখানো হয়, নিজেকে প্রাধান্য দিও না, তোমার সবসময় প্রাধান্য হওয়া উচিত সংসার। বাকিদের কথা ভাবা উচিত। অথচ আমার মা আমায় আজীবন বলে এসেছেন নিজেকে নিয়ে ভাবতে শেখ। তুমি আগে তোমার জন্য তারপর বাকিদের জন্য।"

আরও পড়ুনঃ'মামলা দায়ের করতে রাজি হয়নি মুম্বই পুলিশ', বিস্ফোরক সুশান্তের পরিবারের আইনজীবী

 

বিদ্যার বক্তব্য, নারী ক্ষমতায়ন সর্বদা, সর্বক্ষণ হওয়া প্রয়োজন। পুরুষদের সেই সমস্যা ভোগ করতে হয় না যা নারীদের করতে হয়। বিদ্যা আরও বলেন, "শকুন্তলা দেবী যে সময় গণিত নিয়ে গবেষণা করাকালীন তখন আজকালকার দিনের মত এত স্বাধীনচেতা চিন্তাভাবনা সকলের ছিল না। সেই সময় সমস্যা অনেক বেশি ছিল। আমি ভাবতেও পারি না, তিনি কতখানি কঠিন পরিশ্রম করে সম্মান এবং অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। তিনি যদি সেই সময় দাঁড়িয়ে কঠোর পরিশ্রম করে নিজেকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে যেতে পারেন তাহলে আমরা কেন নই। 'শকুন্তলা দেবী' শুধুমাত্র বায়োপিক হিসাবেই যে মানুষের পছন্দ হবে তা নয়। নারীদের নিজের ক্ষমতা, অধিকার, আশা-আকাঙ্খা, যোগ্যতা বুঝতে শিখতে চিনতে শিখবে। আশা করছি এমনটাই যেন হয়।"