সুশান্তের মৃত্যু তরজা যেন বেড়েই চলেছে। রাজনৈতিক চাপানউতোরও ক্রমশও বাড়ছে। ইতিমধ্যেই বিহার ও মুম্বই পুলিশের মধ্যে দড়ি টানাটানি চলছে।  বিহারের সরকারি আধিকারিক সিবিআই তদন্তের দাবি তুলেছেন। সারা দেশই গর্জে উঠেছে সুশান্তের মৃত্যু তদন্তে। বিহার বনাম মহারাষ্ট্র যেন থামছেই না। যত দিন যাচ্ছে ততই জটিল হচ্ছে মৃত্যু রহস্য। এই মৃত্যুর তদন্তের মাঝেই নাম জড়াল ঠাকরে পরিবারের। বেশ কয়েকদিন আগেই টিম কঙ্গনার একটি টুইট ঘিরেই ঝামেলার সূত্রপাত। নাম না নিয়েই ঠাকরে পরিবারের উত্তরসূরীকে তোপ দেগেছিলেন অভিনেত্রী। ব্যস! সেখানে থেকেই বিতর্কের শুরু। তিনি জানিয়েছিলেন, 'করণ জোহরের প্রিয় বন্ধু এবং পৃথিবীর সেরা মুখ্যমন্ত্রীর সেরা ছেলে যাকে কিনা ভালবেসে সবাই বেবি পেঙ্গুইন বলে।' সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকেই একের পর  এক টুইট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হয়েছেন কঙ্গনা রানাউত। 

আরও পড়ুন-আজই সুপ্রিম কোর্টে রিয়ার আবেদনের শুনানি, আদৌ কি বিহার থেকে মুম্বইতে আসবে সুশান্ত মামলা...

কঙ্গনার সেই টুইট বিতর্কেই সরব হয়েছেন উদ্ধবপুত্র আদিত্য ঠাকরে।তিনি জানিয়েছেন মহারাষ্ট্র সরকার যেভাবে করোনার মোকাবিলা করছে তাতেই বিরোধী শিবিরগুলির  অসুবিধা হচ্ছে। তেমনই সুশান্তের মৃত্যুকে হাতিয়ার করে নোংরা রাজনীতি করছে এরা। আদিত্যও নাম নিয়ে গেরুয়া শিবিরকে বিঁধেছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ বিজেপির একাধিক মন্ত্রীদের অভিযোগ উদ্ধব ঠাকরের সরকার বলি মাফিয়াদের আড়াল করছে। আদিত্য সাফ জানিয়েছেন, 'এই নোংরা রাজনীতিতে আমি নেই। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে বন্ধু থাকা কোনও অপরাধ নয়।  কিন্তু যেভাবে ঠাকরে পরিবারের উপর অশ্লীল মন্তব্য করা হচ্ছে তা দেখেই মুখ খুলতে বাধ্য হলাম।'

 


আদিত্য ঠাকরের এই মন্তব্য করার পরই আবারও ফুঁসে উঠেছেন কঙ্গনা। তিনি আদিত্যর উদ্দেশ্যে প্রশ্ন তুলেছেন, তোমার বাবা উদ্ধব ঠাকরেকে বলো সুশান্তের মৃত্যুর সঙ্গ জড়িত কয়েকটা প্রশ্নের উত্তর দিতে। যা এখনও ধোঁয়াশা। দেখে নিন টুইটটি, 

 


সুশান্তের মৃত্যুর পর একের এক বোমা ফাটাচ্ছেন বলিউডের কন্ট্রোভার্সি কুইন কঙ্গনা রানাউত। তিনিই প্রথম সুশান্তের মৃত্যু আত্মহত্যা নাকি খুন এর দাবি তুলেছিলেন।তার মৃত্যুর পর থেকেই স্বজনপোষণ নিয়ে জোর জল্পনা দানা বেঁধেছে বি-টাউনের অন্দরে।

 

প্রথম সারির বেশ কয়েকজনের নাম তিনিই প্রথম প্রকাশ্যে এনেছিলেন। 'এটা আত্মহত্যা নয়, এটা পরিকল্পিত খুন'।  সুশান্তের মৃত্যুর পরই এই অভিযোগ এনে চাঞ্চল্য ফেলে  দিয়েছিলেন বি-টাউনে। জোরকদমেই চলছে সুশান্তের হত্যার তদন্ত। পরিবার থেকে বন্ধু-বান্ধব, বলিউডের হেভিওয়েট কেউই বাদ যাননি সেই তালিকা থেকে। দফায় দফায় জেরা করছে মুম্বই পুলিশ।