প্রতিবাদ বিক্ষোভের নামে বৃহস্পতিবার লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে রীতিনতো ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটালো ব্রিটিশ-পাকিস্তানি, পাকিস্তানি কাশ্মীরি ও খালিস্তানপন্থী শিখরা। তাদের অসভ্যতায় ভেস্তেই গেল স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে প্রবাসী ভারতীয়দের আয়োজিত অনুষ্ঠান। আহত হলেন বেশ কয়েকজন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক।  

এদিন, লন্ডনে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে বিকেলে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেই উপলক্ষ্যে দুপুর থেকেই ভারতীয় বংশোদ্ভূতরা সপরিবারে ভারতীয় দূতাবাসের সামনে জড়ো হয়েছিলেন। তাদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য উপস্থিত ছিলেন অল্প সংখ্যক ঘোড়সওয়াড় পুলিশ।

ইচ্ছা করেই ভারত বিরোধী প্রতিবাদ বিক্ষোভ প্রদর্শনের জন্য এই দিনটিই বেছে নিয়েছিলেন পাক-ব্রিটিশরা। বেলা বারোটা নাগাদই বার্মিংহাম, নটিংহামের মতো কাউন্টিগুলি থেকে দলে দলে এসে তাঁরা জড়ো হন ভারতীয় দূতাবাসের সামনেই। তাদের হাতে ছিল কাশ্মীরি ও খালিস্তানি পতাকা। ব্যানারে ও মুখে ছিল ভারত বিরোধী স্লোগান।

দূতাবাসের সামনে এসেই প্রবাসী ভারতীয়দের উদ্দেশ্য করে তারা অকথ্য গালিগালাজ করতে থাকে। ভারতীয়দের ঘিরে দাঁড়িয়েছিল ঘোড়সওযার পুলিশরা। এরপর আচমকাই বিনা প্ররোচনায় ঘোড়সওয়াড় পুলিশদের মাথার উপর দিয়ে ভারতীয়দের লক্ষ্য করে বিভিন্ন জিনিস ছুড়তে শুরু করে তারা। ডিম, কাচের বোতল, জুতো, প্লাস্টিকের জলভর্তি বোতল, লাইটার, কলা, আপেল, ব্য়াটারি, আলু, গরম কফি, প্ল্যাকার্ডের বৃষ্টির মধ্যে আতঙ্কিত ভারতীয়রা জড়োসড়ো হয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। এমনকী ঘোড়সওয়াড় পুলিশদের লক্ষ্য করে স্মোক বম্বও ছোড়া হয় বলে অভিযোগ।

প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা এইভাবে কাটার পর বিশাল সংখ্যক রায়ট পুলিশ এসে পাকিস্তানি দুষ্কৃতীদের পিছু হটিয়ে দেয়। চারজন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। যতক্ষণ পর্যন্ত ভারতীয়দের বাড়ি ফেরার সুরক্ষিত রাস্তা দেওয়া গিয়েছে পুলিশ তাদের ভারতীয় হাইকমিশন ভবনে ঢুকিয়ে দেয়। অনেক ভারতীয়ই আহত হয়েছেন। মহিলা ও শিশুরাও সেই তালিকায় রয়েছে। ভাহরতীয় বংশোদ্ভূতরা লন্ডনের প্রশাসনের বিরুদ্ধে ব্যর্থতার অভিযোগ এনেছেন।