পরণে ক্রিম রঙা পাড়ের লাল শাড়ি। সঙ্গে তাঁর মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, এবং অন্যান্য আধিকারিকরা। এভাবেই অর্থ মন্ত্রক ছেড়ে সংসদ ভবনে পৌঁছেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ। হাতে কেন্দ্রীয় বাজেট। চামড়ার স্যুটকেস, গত বছরই তিনি বাতিল করে দিয়েছিলেন। ফিরেছিলেন স্বদেশি 'বই-খাতা'য়। এবার তাঁর হাতে লাল খামে মোড়া ট্যাব। আর তাতেই রয়েছে কেন্দ্রীয় বাজেট ২০২১-২২'এর সফট কপি। তা দেখেই সোমবার সকাল ১১টায় বাজেট পেশ করবেন নির্মলা সীতারমণ।

অন্যান্য বছর বাজেট পেশের দিন, অর্থমন্ত্রক থেকে বস্তাবন্দি কাগজের তাড়া বয়ে নিয়ে যেতে দেখা যায় মন্ত্রকের কর্মীদের। এবার কোভিড পরিস্থিতিতে ছবিটা অনেকটাই পাল্টে গিয়েছে। ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতার পর এই প্রথমবার সংসদে কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করা হবে সম্পূর্ণ কাগজবিহীনভাবে। গত বছর বাজেট পেশের দিন চামড়ার স্যুটকেস বদলে 'বই-খাতা' করার সপক্ষে নির্মলা সীতারমণ বলেছিলেন,  মোদী সরকার কোনও 'স্যুটকেস বহনকারী সরকার' নয়। তবে এইবারের বদল, কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে বলে জানানো হয়েছে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক সূত্রে।
   
শুধু তাই নয়, এই বছর কেন্দ্রীয় বাজেটের সম্পূর্ণ নথি একেবারে হাতের মুঠোয় থাকবে সাধারণ মানুষেরও। এর জন্য অর্থমন্ত্রক 'ইউনিয়ন বাজেট মোবাইল অ্যাপ'(Union Budget Mobile App) চালু করা হয়েছে। মোবাইলে এই অ্যাপ ডাউনলোড করলেই সাংসদদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও বাজেট পড়ে নিতে পারবেন যখন তখন। এই অ্যাপে সরকারের বাৎসরিক আর্থিক বিবৃতি (বাজেট হিসাবেই যা বেশি পরিচিত), অনুদানের চাহিদা (Demand for Grants), এবং আর্থিক বিল সহ কেন্দ্রীয় বাজেটের ১৪টি নথিই পাওয়া যাবে।

চামড়ার স্যুটকেস থেকে বই-খাতা হয়ে কেন্দ্রীয় বাজেট এবার সংসদে এসে পৌঁছাল ট্যাব-মাধ্যমে। অথচ মজার বিষয় হল, 'বাজেট' (Budget) শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে ফরাসি শব্দ বাগেত (Baguette) থেকে, বাংলায় যার অর্থ চামড়ার ব্রিফকেস। বাজেটের নথি চামড়ার ব্রিফকেস বা স্যুটকেসে বহন করার বিশেষ ঐতিহ্য রয়েছে ব্রিটিশদের।