পত্রলেখা বসু চন্দ্র, বর্ধমান: ভিনরাজ্য থেকে ট্রাকে চাপিয়ে কি বিরল প্রজাতির প্রাণীটিকে পাচার করা হচ্ছিল? মঙ্গলবার সাতসকালে নীলগাই-এর দেখা মিলল বর্ধমান শহরে। ঘটনাটি জানাজানি হতেই রীতিমতো হইচই পড়ে যায় এলাকায়। প্রাণীটিকে উদ্ধার করে অভয়ারণ্যে পাঠিয়েছে বনদপ্তর। নীলগাইটির পা ও কোমড়ে আঘাত রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: শহিদ সুবোধ ঘোষের শেষকৃত্যে বিজেপি সাংসদকে 'ঢুকতে বাধা', টুইটে ক্ষোভ প্রকাশ রাজ্যপালের

বর্ধমান শহরে উপকণ্ঠ ছুঁয়ে চলে গিয়েছে দুই নম্বর জাতীয় সড়ক। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় গোদায় এলাকায় জাতীয় সড়কের উপর একটি নীলগাইকে দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। তড়িঘড়ি খবর দেওয়া হয় পশুপ্রেমী সংগঠন ও বনদপ্তরে। অত্যন্ত তৎপরতায় সঙ্গে প্রাণীটিকে উদ্ধার করে বন দপ্তরের আধিকারিকরা। সেটিকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বর্ধমানেরই রমনাবাগান অভয়ারণ্যে। জানা গিয়েছে, নীলগাইটির পা ও কোমরের আঘাত গুরুতর। চিকিৎসা চলছে।

আরও পড়ুন: রাজ্যে কমলো করোনা সংক্রমণের হার, গত ২৪ ঘন্টায় মৃতের সংখ্যা ৫৩

এ রাজ্যের কোথাও কিন্তু নীলগাই দেখতে পাওয়া যায় না। তাহলে বর্ধমানে কিভাবে এল প্রাণীটি? বন দপ্তর সূত্রে খবর, নীলগাই দেখতে পাওয়া যায় মূলত উত্তরপ্রদেশে। তবে সুন্দরবনে চাষের কাজে লাগানোর জন্য অনেক সময় প্রাণীগুলিকে ভিনরাজ্য থেকে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক অনুমান, চাষের কাজের জন্য কিংবা পাচার করার জন্য উত্তরপ্রদেশ থেকে ট্রাকে করে নীলগাই নিয়ে হচ্ছিল কলকাতায়। তখন হয়তো কোনওভাবে এটি গাড়ি থেকে পড়ে গিয়েছে বা ঝাঁপ দিয়েছে। সেকারণে চোটও লেগেছে কোমরে ও পায়ে। উল্লেখ্য, বছর চারেক আগে বর্ধমানেরই খণ্ডঘোষের একটি মাঠ থেকে নীলগাই উদ্ধার করা হয়েছিল। কিন্তু সেটিকে বাঁচানো যায়নি।