সংক্রমণ থেকে বাঁচতে সাধারণ মানুষ যখন ঘরবন্দি, তখন লকডাউন সফল করতে রাস্তায় নেমেছেন তাঁরা। ফলে যা হওয়ার, তাই হচ্ছে। নিচুতলার কর্মীরা আক্রান্ত হচ্ছেনই, এবার করোনা থাবা বসাল পুলিশের উপর মহলেও। কোভিড আক্রান্ত আসানসোল-দুর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার সুকেশ জৈন। রাজ্য সরকারের নির্দেশে আপাতত বাড়ি থেকে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন তিনি। রয়েছেন হোম কোয়ারেন্টাইনে।

আরও পড়ুন: মানসিক চাপ কমাতে ভিডিও কলিংয়ে কথা হোক কোভিড রোগী ও পরিবারের, নয়া নির্দেশিকা রাজ্যের

করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই নেই কারও। রানিগঞ্জ, অন্ডাল, দুর্গাপুরের কর্মরত ২০ জুন পুলিশকর্মী সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। গত কয়েক দিন ধরে অসুস্থ বোধ করছিলেন খোদ পুলিশ কমিশনার সুকেশ জৈনও।  উপসর্গ দেখা দেয় তাঁর শরীরে। চিকিৎসকদের পরামর্শে বুধবার লালারস সংগ্রহ করা হয়। বৃহস্পতিবার করোনা পজিটিভি রিপোর্ট আসে। পুলিশ সূত্রে খবর, সংক্রমণ ধরা পড়ার পর হোম আইসোলেশনে রয়েছে তিনি। রাজ্য সরকারের নির্দেশে তিন দিন ধরে কাজ করছেন বাড়ি থেকেই।

আরও পড়ুন: এলাকায় 'তোলাবাজি' ও 'লুটপাট', প্রাক্তন অঞ্চল সভাপতিকে বহিষ্কার করল তৃণমূল

পশ্চিম বর্ধমানের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকে দপ্তরের এক কর্মী থাকেন আসানসোল জেলা হাসপাতালে সরকারি আবাসনে। তাঁর পরিবারের তিনজনের পজিটিভি রিপোর্ট এসেছে। বস্তুত, ওই কর্মী নিজেও করোনা আক্রান্ত হয়ে ভর্তি দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতাসে। জানা গিয়েছে, পরিবারের যে তিনজনের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, তাঁদের মধ্যে একজন আসানসোল জেলা হাসপাতালে কর্মীরা। ফলে জেলা হাসপাতাল ও কর্মী আবাসনেও ছড়িয়েছে আতঙ্ক।  শেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, পশ্চিম বর্ধমানে এখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচশোরও বেশি।