টিকটক সহ ৫৯ টি চিনা অ্যাপ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে আগেই বড় পদক্ষেপ নিয়েছিল ভারত সরকার। এবার ফের কোপ চিনা বাণিজ্যে। রঙিন টিভি আমদানি করার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ চাপাল ভারত। গত বৃহস্পতিবারই এমন নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। মূলত দেশের সংস্থাগুলির ব্যবসা বাড়াতে ও চিন থেকে আমদানি বন্ধ করতেই এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। নিজেদের দেশের উৎপাদনকে আরও জোর দিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন-১০ দিনে প্রথমবার লক্ষ্মীবারে দাম কমল সোনার, সস্তা হয়েছে রূপোও...

নয়া নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, রঙিন টিভি রফতানিকারী সংস্থাগুলিকে এবার থেকে লাইসেন্স দেওয়ার জন্য ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ ফরেন ট্রেড-এর থেকে আলাদাভাবে অনুমোদন নিতে হবে।সেই বিধিনিষেধের তালিকায় রয়েছে ৩৬ থেকে ১০৫ সেন্টিমিটার স্ক্রিন বিশিষ্ট টিভি সেট এবং ৬৩ সেন্টিমিটারের কম দৈর্ঘ্যের স্ক্রিন বিশিষ্ট লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে  টিভি সেট। মূলত চিন, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তাইল্যান্ড এবং জার্মানি থেকে কালার টিভি আমদানি করে ভারত। সম্প্রতি দেখা গিয়েছে গত অর্থবর্ষে ৩১ মার্চ পর্যন্ত ভারতে মোট ৭৮১ মিলিয়ন ডলারের কালার টিভি আমদানি করা হয়েছে। এর মধ্যে বেশিরভাগই টিভিই এসেছে ভিয়েতনাম ও চিন থেকে। ভিয়েতনাম থেকে ৪২৮ মিলিয়ন ডলার ও চিন থেকে ২৯৩ মিলিয়ন ডলারের কালার টিভি এসেছে গত এক বছরে। 

পুরো বিষয়টি নিয়ে প্যানাসনিক ভারতের প্রেসিডেন্ট এবং সিইও মণীশ শর্মা জানিয়েছেন, কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের ফলে উচ্চমানের টিভি সেট পাবেন ভারতীয় গ্রাহকরা। দেশের মধ্যে যে টিভির বিভিন্ন সামগ্রী অ্যাসেম্বল করা হয় , তার ক্ষেত্রে অবশ্যই ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে এই সিদ্ধান্ত। প্রথমসারির সংস্থাগুলির  দেশে উৎপাদন এবং অ্যাসেম্বলিং কারখানা রয়েছে। তাই এটা আমাদের উপর প্রভাব ফেলবে না। ইতিমধ্যেই  চিনা সংস্থার সঙ্গে রেল ও রোড টেন্ডারও বাতিল করে দিয়েছে ভারত।গালওয়ান ভ্যালিতে ভারত-চিন সংঘাতে ভারতের ২০ জওয়ান শহিদ হওয়ার পর থেকেই চিনের অর্থনীতি ও বাণিজ্যে কোপ বসানোর চেষ্টা করে চলেছে ভারত। চিনের সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য যতটা সম্ভব কমিয়ে আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ভারত। ইতিমধ্যেই প্রথম দফায় ৫৯টি ও পরের দফায় ৪৭টি চিনা অ্যাপ ব্যান করা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে টিক টক, উই চ্যাট সহ একাধিক জনপ্রিয় অ্যাপ রয়েছে।