দেশের বৃহত্তম ঋণদাতা প্রতিষ্ঠান এসবিআই তাদের ব্যাঙ্কের কাঠামোর মধ্যেই তৈরি করেছে একটা পৃথক এফআই অ্যান্ড এমএম ভার্টিক্যাল। এই ভার্টিক্যালের একমাত্র নজর থাকবে গ্রামীণ ও আধা শহর এলাকায় আর্থিক অন্তর্ভুক্তি ও মাইক্রো মার্কেটের ওপর। দেশের পশ্চাদপদ এলাকাগুলিতে গ্রাহকদের  অভিজ্ঞতাকে আরও বেশি পরিমাণে সমৃদ্ধ করাই এই উদ্যোগের মূল লক্ষ্য। নতুন এই ভার্টিকালের অধীনে, ব্যাঙ্ক প্রধানত ঋণ দেবে কৃষি ও সংশ্লিষ্ট কাজকর্ম এবং অতি ক্ষুদ্র ও ছোট উদ্যোগগুলিকে। 

দেশের গ্রামীণ ও আধা শহর এলাকার প্রায় ৮ হাজার শাখাকে চিহ্নিত করা হয়েছে  ক্ষুদ্র উদ্যোগের ক্ষেত্রকে বিশেষ পরিষেবা দেওয়ার জন্য। এর মধ্যে থাকবে ক্ষুদ্র ব্যবসা ও কৃষকদের জন্য ক্ষুদ্র ঋণও। গ্রামীণ, আধা শহর, শহুরে ও মেট্রো এলাকায় ব্যাঙ্কের রয়েছে ৬৩ হাজারেরও বেশি কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্ট। এগুলির মাধ্যমে পরিষেবার গুণমানের উন্নতি ও ব্যাঙ্কের পরিষেবা সহজলভ্য করার ওপর জোর দেওয়া হবে। দেশের মাইক্রো ফিনান্স সেক্টরকে প্রণোদনা দেবে এই নতুন ভার্টিক্যাল।


 
নতুন এই ভার্টিক্যালের উদ্বোধন করে এসবিআইয়ের চেয়ারম্যান রজনীশ কুমার বলেছেন, ‘আজকের দিনটা ব্যাঙ্কের জীবনে একটা গুরুত্বপূর্ণ দিন। এদিন আমরা নতুন করে জোর দিয়ে একথা বলতে চাই যে, এসবিআই দেশের নাগরিক-সহ সব শ্রেণির মানুষের পাশেই রয়েছে। নতুন এফআই অ্যান্ড এমএম ভার্টিক্যাল তৈরির লক্ষ্য হল বিভিন্ন ব্যবসার প্রতি আরও তীক্ষ্ণ নজর দেওয়া এবং শাখাগুলিতে গ্রাহকদের সঙ্গে ব্যাঙ্কের যোগাযোগের গুণমানকে আরও উন্নত করা। এটা হল দেশের দূরবর্তী এলাকাগুলির বাসিন্দাদের আর্থিক প্রয়োজনীয়তা মেটানোর লক্ষ্যে এসবিআইয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ। এই যাত্রার লক্ষ্য হল দূরবর্তী এলাকার লোকেদেরও আর্থিক পরিষেবায় অন্তর্ভুক্ত করে নেওয়া। নতুন এফআই অ্যান্ড এমএম ভার্টিক্যাল ছোট ব্যবসা, কৃষি ও সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রকে পরিষেবা দেবে যাতে, বিশেষ করে সাম্প্রতিক অনিশ্চয়তার পর্বে, তারা নির্বিঘ্নে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারে। ব্যাঙ্কই নতুন এই এফ আই অ্যান্ড এমএম ভার্টিক্যাল চালুর পরিকল্পনা করেছে, এটা তৈরি করেছে এবং কার্যকর করেছে।’

 ক্ষুদ্র  ঋণদান ব্যাবস্থাকে শক্তিশালী করতে, ঋণদানে দ্রুত সম্মতি দেওয়ার সময় কমাতে এবং দ্রুত ঋণের টাকা গ্রাহকের হাতে পৌঁছে দেওয়াই এর লক্ষ্য। জেলাস্তরে ভার্টিক্যালের উপস্থিতি সংহত করার ওপরেই প্রাথমিকভাবে জোর দেওয়া হবে। উদ্দেশ্য হল, এফআই অ্যান্ড এমএম নেটওয়ার্কের আওতায় থাকা শাখাগুলিকে ঋণদান ও ঋণের টাকা আদায়ের কাজে ক্রমাগত সমর্থন জুগিয়ে যাওয়া। কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্টগুলি যাতে ভালভাবে কাজ করতে পারে তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে ডিএইচএসগুলি। এবং গ্রাহকেরা যাতে উন্নত গুণমানসম্পন্ন ও সহজলভ্য পরিষেবা  পান তা নিশ্চিত করবে।