অনুমানের তুলনায় কিছুটা কম ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, তবে অন্যদের তুলনায় শক্তিশালী: বিশ্ব ব্যাঙ্ক

| Oct 06 2022, 09:30 PM IST

অনুমানের তুলনায় কিছুটা কম ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, তবে অন্যদের তুলনায় শক্তিশালী: বিশ্ব ব্যাঙ্ক
অনুমানের তুলনায় কিছুটা কম ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, তবে অন্যদের তুলনায় শক্তিশালী: বিশ্ব ব্যাঙ্ক
Share this Article
  • FB
  • TW
  • Linkdin
  • Email

সংক্ষিপ্ত

বিশ্ব ব্যাঙ্ক ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার সংশোধন করেছে।  বর্তমান তথ্য অনুযায়ী এই দেশের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিক হার হবে ৬.৫ শতাংশ। তবে ২০২২ সালের জুন মাসে দেশের আর্থিক বৃদ্ধির হার অনুমান করা হয়েছিল ৭.৫ শতাংশ হবে।

বিশ্ব ব্যাঙ্ক ভারতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার সংশোধন করেছে।  বর্তমান তথ্য অনুযায়ী এই দেশের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিক হার হবে ৬.৫ শতাংশ। তবে ২০২২ সালের জুন মাসে দেশের আর্থিক বৃদ্ধির হার অনুমান করা হয়েছিল ৭.৫ শতাংশ হবে। বিশ্ব ব্যাঙ্ক জানিয়েছেন আর্থিক বৃদ্ধির হার কিছুটা কম হলেও অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতীয় অর্থনীতি অনেকটাই শক্তিশালী হয়ে উঠছে। 

উল্লেখ্য আগের অর্থবর্ষে ভারতীয় অর্থনৈতি ৮.৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছিল। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সঙ্গে বার্ষিক বৈঠকের আগে প্রকাশিত বিশ্বব্যাঙ্কের সাম্প্রতিক দক্ষিণ এশিয়ো অর্থনৈতিক ফোরাসে সংশোধিত অনুমানগুলি প্রকাশ করা হয়। 

Subscribe to get breaking news alerts


বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান অর্থনীতিবিদ হ্যান্স টিমারের মতে, ভারতের অর্থনীতি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় ভালো করেছে। ভারতীয় অর্থনীতি তুলনামূলকভাবে শক্তিশালী বৃদ্ধি, কর্মক্ষমতা সহ COVID-এর প্রথম পর্যায়ে তীব্র সংকোচন হয়েছিল তা  থেকে ফিরে এসেছে।  সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। এই দেশের মাথার ওপর বড় কোনও বাহ্যিক ঋণ না থাকায় দেশের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ভালভাবে হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। আরও বলেছেন ভারতীয় অর্থনীতি বিশেষ করে পরিষেবা খাতে ভাল ফল করছে। 

হ্যান্স আরও বলেছেন যে অর্থবছরের জন্য ডাউনগ্রেড পূর্বাভাসটি মূলত বিদ্যমান আন্তর্জাতিক পরিবেশের কারণে ছিল, যা ভারত এবং অন্যান্য সমস্ত দেশের জন্য খারাপ হচ্ছে। বছরের মাঝামাঝি সময়ে একটি প্রবর্তন বিন্দু দেখা যায় এবং বিশ্বজুড়ে মন্দার প্রথম লক্ষণ দেখা যাচ্ছে, তিনি বলেন, ভারত এবং অন্যান্য অনেক দেশে ক্যালেন্ডার বছরের দ্বিতীয়ার্ধ তুলনামূলকভাবে দুর্বল হবে।

হ্যান্স জানিয়েছেন উচ্চ আয়ের দেশগুলি প্রকৃত অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি কম হয়েছে। যা মন্দার অন্যতম একটি কারণ। আর এই কারণেই অর্থবর্ষেপ নিম্নমানের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। বিশ্ব মুদ্রানীতি কঠোর করার ফলে অনেক উন্নয়নশীল দেশে মূলধনের বহিঃপ্রবাহ এবং সেখানে সুদের হার বৃদ্ধি এবং অনিশ্চয়তা, যা বিনিয়োগের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। তবে ভারত এখনও এর বাইরে নয় বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

যদিও ভারত ততটা দুর্বল নয়। তবে অন্যান্য বেশ কিছু দেশের তুলনায় ভাল করছে। তবুও ভারতেরও সামনে বিপদ রয়েছে। উচ্চ দ্রব্যমূল্য ভারতকে সমস্যায় ফেলতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন হ্যান্স। তিনি বলেন ভারত সরকার সামাজিন নিরাপত্তা ও ডিজিটাল ধারনাকে দৃঢ়় করে বিশ্বের অন্যান্য দেশের কাছে একটি উদাহরণ স্থাপন করেছে। কিন্তু বিশ্বব্যাঙ্কের দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান ভারত সরকারের কয়েকটি নীতির সঙ্গে একমত নয় বলেও জানিয়েছেন। পণ্যের উচ্চমূল্যের বিষয়ে নরেন্দ্র মোদি সরকারের প্রতিক্রিয়া দীর্ঘমেয়াদে বিপরীতমুখী হতে পারে। গম রপ্তানি নিষিদ্ধ করার এবং চাল রপ্তানিতে উচ্চ শুল্ক আরোপের সরকারের সিদ্ধান্তের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদিও দেশীয়ভাবে খাদ্য নিরাপত্তা তৈরি করা যৌক্তিক, কিন্তু এই ধরনের কর্মকাণ্ড বাকি অঞ্চলে এবং বিশ্বব্যাপী আরও সমস্যা তৈরি করে।

ভারতের বেশ কিছু সমস্য়া রয়েছে, যেগুলি দ্রুত সমাধান করতে হবে বলেও হ্যান্স জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমরা তুলনামূলকভয়াবে অনুকূল বৃদ্ধির হার দেখি। তবে এটি এমন বৃদ্ধি যা অর্থনীতির একটি ছোট অংশ দ্বারা সমর্থিক। অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী থাকতে গেলে ভারতকে নিজেদের ফোকাসে বিদ্যমান থাকতে হবে। বড় সংস্থা আর এফডিআইএর ওপর নজর দিতে হবে। শুধুমাত্র সামাজিক নিরাপত্তাই যথেষ্ট নয় বলেও দাবি করেন তিনি। আরও বেশি মানুষের অর্থনীতি সুসংহত করতে হবে বলেও জানিয়েছেন হ্যান্স। 

বড় সাফল্য Alt News, প্রতীক সিনহা ও মহম্মদ জুবেরর নাম নোবেল শান্তি পুরষ্কারের তালিকায়

হোটেলের ঘরে কিশোরীকে ২বার ধর্ষণ, দেশের মাটিতে পা রাখতেই গ্রেফতার নেপাল ক্রিকেটার সন্দীপ লামিছানে

সাহিত্যে নোবেল পেলেন অ্যানি এরনো, দক্ষতা আর সাহসিকতার সম্মান বলন কমিটি