বধূ নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছিলেন। জেল হেফাতের এক বিজেপি মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ফের অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠল কোচবিহারের দিনহাটা।  মৃতদেহ নিয়ে থানা ঘেরাও করলেন গেরুয়াশিবিরে কর্মী-সমর্থক, টাওয়ার জ্বালিয়ে চলল পথ অবরোধ।

মৃতের নাম রামপ্রসাদ বারুই। বাড়ি, দিনহাটার গোসানিমারি এলাকায়। এলাকায় সক্রিয় বিজেপি কর্মী হিসেবে পরিচিত ছিলেন ছিয়াত্তর বছরের ওই বৃদ্ধ। গত ৩০ ডিসেম্বর রামপ্রসাদকে দিনহাটার থানার পুলিশ গ্রেফতার করে বলে জানা গিয়েছে। তবে  রাজনৈতিক কারণে নয়, বধূ নির্যাতনের অভিযোগে ওই বৃদ্ধকে গ্রেফতার করা হয়। অন্তত তেমনই দাবি পুলিশের। সূত্রের খবর, জেল হেফাজতে থাকাকালীন ৯ জানুয়ারি অসুস্থ হয়ে পড়েন রামপ্রসাদ।  তাঁকে ভর্তি করা হয় দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে। চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে গিয়েছিলেন, ওই বন্দিকে ফের জেলে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু জেলে ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন বিজেপি কর্মী রামপ্রসাদ বারুই। এবার তাঁকে ভর্তি করা হয় কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। সোমবার ভোররাতে মারা যান রামপ্রসাদ। ঘটনাটি জানাজানি হতেই তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। পুলিশের বিরুদ্ধে অত্যাচারের অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বিজেপি কর্মীরা।

আরও পড়ুন: ভরদুপুরে তৃণমূলকর্মীকে কুপিয়ে খুন, অভিযোগের আঙুল দলেরই বিধায়কের দিকে

মঙ্গলবার যখন ময়নাতদন্তের পর বিচারাধীন ওই বন্দির দেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়, তখন ফের নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে দিনহাটায়। মৃতদেহ নিয়ে থানা ঘেরাও করেন বিজেপি কর্মীরা। টাওয়ার জ্বালিয়ে পথ অবরোধও করা হয়। বিজেপি কর্মীদের দাবি, মিথ্যা মামলায় রামপ্রসাদ বারুইকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। জেলে অত্যাচারের কারণেই মারা গিয়েছেন তিনি।  পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলে, বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইঁট ছোঁড়েন বলেও অভিযোগ।  এদিকে  হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন ওই বিজেপি কর্মী। ঘটনার ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়েছে বলে খবর।