গোটা পৃথিবীতে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ। তাবড় সেলিব্রিটিরাও বাদ যাচ্ছেন না। এই তালিকায় বোধহয় সবার উপরে যে নামটা থাকবে, সেটি হল প্রিন্স চার্লস। বুধবারই স্কটল্যান্ডের ক্লেরেন্স হাউস থেকে জানানো হয়েছিল ব্রিটিশ রাজপরিবারের সিংহাসনের পরবর্তী উত্তরাধিকারী প্রিন্স চার্লস-ও এই মারাত্মক সংক্রামক ব্যধীতে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে কার থেকে তাঁর দেহে এই রোগ ছড়িয়েছে তা বলা মুশকিল বলে জানিয়েছিলেন কেল্রেন্স হাউসের মুখপাত্র।

তবে, এই মুহূর্তে জোর জল্পনা চলছে, আরেক সেলিব্রিটির থেকেই কোভিড-১৯'এ আক্রান্ত হয়েছেন ব্রিটিশ যুবরাজ। তিনি আর কেউ নন, ভারতের একমাত্র কোভিড-১৯ আক্রান্ত সেলিব্রিটি প্লে ব্যাক সিঙ্গার কনিকা কাপুর। যিনি কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়েই ভারতে বিভিন্ন পার্টিতে ঘুরে বেড়িয়েছিলেন, আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। পরে তাঁকে জোর করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে হাসপাতালের কর্মীদের সঙ্গেও অভব্য ব্যবহার করেছেন তিনি বলে অভিযোগ রয়েছে।

গায়িকা কনিকা কাপুরের থেকে প্রিন্স চার্লস-এর দেহে কোভিড-১৯ রোগ ছড়ালো কীকরে? বস্তুত, সোশ্যাল মিডিয়ায় এই জল্পনা শুরু হয়েছে একটি ছবিকে কেন্দ্র করে। ছবিটি আরেকটি পার্টির ছবি। ছবিতে প্রিন্স চার্লস-এর সঙ্গে কতা বলতে দেখা যাচ্ছে গায়িকা কনিকা কাপুর-কে। তাঁর পরণে কমলা শাড়ি। এই ছবিটিই এখন সোশ্য়াল মিডিয়ায় ভাইরাল। অনেকেই এই ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, হয় প্রিন্স চার্লস-এর দেহে কনিকার থেকেই ভাইরাস সংক্রামিত হয়েছে। নাহলে চার্লস-এর থেকে কনিকার দেহে। তবে চার্লস-এর আগে কনিকাই আক্রান্ত হওয়ায় প্রথম মতটিই বেশি চলেছে।

সত্যি সত্যিই কী যে পার্টির ছবি ভাইরাল হয়েছে, ওই পার্টি থেকেই বিশ্বের দুই দেশের দুই সেলিব্রিটি কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন? ছবিটি ধরে সার্চ ইঞ্জিন-এর মাধ্যমে খোঁজ যে উত্তর পাওয়া গিয়েছে তা হল, এই দুই সেলিব্রিটির কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার পিছনে ওই পার্টির কোনও ভূমিকা ছিল না। বস্তুত, ২০১৫ সালেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই ছবি প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। কাজেই ছবিটি ২০১৫ সালের কোনও একসময়ের বা তারও আগের। আর ২০১৯ সালের আগে এই নতুন করোনাভাইরাসটি সম্পর্কে পৃথিবীর কোনও ধ্যান ধারণা ছিল না। কাজেই কনিকা কাপুরের থেকে প্রিন্স চার্লস আক্রান্ত হয়েছেন বা উল্টোটা, এর কোনওটিই ঠিক নয়।