ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চের তরফ থেকে জানান  হয়েছে প্রায় ৩৭ লক্ষ দ্রুত পরীক্ষার কিট যে কোনও মুহূর্তেই হাতে পেয়ে যেতে পারে ভারত। তবে সূত্রের খবর স্বাস্থ্য মন্ত্রক মনে করে এলোমেলো পরীক্ষার কোনও প্রয়োজন নেই। সরকার নির্ধারিত মানদণ্ড অনুযায়ী পরীক্ষা করলেই সমস্যার সমাধান হবে। কিন্তু আরইএমআর জানিয়েছে গতকাল পর্যন্ত তাঁরা ২ লক্ষেরও বেশি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছে। 

  স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ থেকে জানান হয়েছে, টানা ২৮ দিনের মধ্যে কোনও একটি এলাকা থেকে যদি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের কোনও নতুন রোগী সামনে না আসে তাহলে ধরে নিতে হবে ওই এলাকার সংক্রমণের শৃঙ্খলটি ভেঙে দেওয়া গেছে। সংক্রমণ রুখে দেওয়াই স্বাস্থ্য দফতরের প্রথম ও প্রধান কাজ বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রকের যুগ্ন সচিব লব আগরওয়াল। একমাত্র সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণে শৃঙ্খল ভাঙা যাবে বলেও দাবি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রক।  
  মঙ্গলবার নতুন করে দেশে ১হাজার ২১১ জন করোনাভাইরাস আক্রান্ত্র সন্ধান পাওয়া গেছে। আক্রান্ত্রের সংখ্যা এক ধাক্কায় ১০ হাজার পৌঁছে গেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার আক্রান্তের সংখ্যা ১০,৩৬৩। তবে এখনও পর্যন্ত  এক হাজারেরও বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে পেরেছেন। 
  স্থ্য মন্ত্রকের পাশাপাশি অর্থ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গরীব কল্যাণ যোজনার অন্তর্গত ৫ কোটিরও বেশি মানুষ বিনামূল্যে রেশন পাবেন। ইতিমধ্যে প্রায় ৩২ কোটি মানুষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা পাঠান হয়েছে বলেও জানান হয়েছে।