হৃষিকেশ, ভারতের পর্যটন স্থানগুলির মধ্যে অন্যতম। উত্তরখণ্ডের এই শহরে প্রতিবছর এই শহরে আগমন হয় দেশি-বিদেশি লক্ষাধিক পর্যটকের। হিমালয়ের পাদদেশ গঙ্গানদীর তীরে এই প্রাচীন শহর দেশের যোগা রাজধানী হিসাবেও পরিচিত।  এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের টানে বিদেশিদের আনাগোনা সবসময়ই লেগে থাকে হৃষিকেশে। আর এখানেই এবার লকডাউনের নিময় অমান্য করায় শাস্তি পেতে হল ১০জন বিদেশি পর্যটককে। তাঁদের দিয়ে কাগজে ৫০০ বর সরি লেখাল উত্তরাখণ্ড পুলিশ। অতিথি বলে কোন ছাড় দেয়নি স্থানীয় প্রশাসন।

করোনা সংক্রমণের মোকাবিলা করতে গোটা দেশে ২১ দিনের লকডাউন চলছে। আর তার জেরেই হৃষিকেশে আটকে পড়েছেন বিভিন্ন দেশ থেকে আসা পর্যটকদের দল। এর মধ্যেই কয়েকজন বিদেশি অতিথি লকডাউনের নিয়ম না মেনেই বেরিয়ে পড়েছিলেন হৃষিকেশের প্রাকৃতিক শোভা প্রত্যক্ষ করতে। কিন্তু দেশ জুড়ে যখন লকডাউন চলছে তখন এভাবে যেখান সেখানে ঘুরে বেড়ানো তো ঠিক নয়। সেই গুরুত্ব বোঝাতেই ১০ জন পর্যটককে আটক করে পুলিশ। তাঁদের দিয়ে লেখান হয় ‘আমরা লকডাউনের নিয়ম মানিনি। সে জন্য খুবই দুঃখিত।’ পুলিশের জালে ধরা পড়া অস্ট্রেলিয়া, ইজরায়েল, মেক্সিকো ও অস্ট্রিয়ার পর্যটকরা গঙ্গার ধারে বসে কাগজ নিয়ে সেই কথাই লেখেন গুণে গুণে একেবারে ৫০০ বার। 
 
জানা যাচ্ছে, লকডাউনের নিয়ম ভেঙে উত্তরাখণ্ডের তপোবন এলাকায় গঙ্গার তীরে গিয়েছিলেন ১০ জন বিদেশি পর্যটক। গঙ্গার তীর ধরে হাঁটছিলেন তারা। এসময় তাদের পথ আগলে দাঁড়ান কয়েকজন পুলিশ। স্থানীয় এক পুলিশ কর্তা বিনোদ শর্মা জানান, হৃষিকেশের বাসিন্দারা লকডাউনের নিয়ম মেনেই চলছেন।  হৃষিকেশ বরাবরই বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণের জায়গা। এই  সময়েও নানা দেশের অনেক পর্যটক এখানে আটকে রয়েছেন। পুলিশ সদস্যরা প্রথমে এই বিদেশি পর্যটকদের লকডাউনের গুরুত্ব ও নিয়মাবলী বোঝান। তারপরও নিয়ম ভাঙার কারণে শাস্তি দিতে হয়। গুণে গুণে পাঁচশোবার খাতায় 'সরি' লেখার পরেই মুক্তি দেওয়া হয় ১০ জন পর্যটককে। 


করোনার গ্রাসে প্রায় অর্দ্ধেক ভারত, দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৯ হাজারের গণ্ডি
আসছে কি তবে 'সেকেন্ড ওয়েভ', চিনে নতুন করে করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তে ঘনীভূত আশঙ্কার মেঘ
করোনায় জেরবার বিশ্বে নতুন করে আশঙ্কার মেঘ, এবার উত্তর মেরুর ওজন স্তরে দেখা দিল ছিদ্র

লকডাউনের সময় বিদেশি অতিথিরা যাতে বাইরে না যান, সেই বিষয়ে হোটেলগুলি যাতে পর্যটকদের বুঝিয়ে বলে সেই নির্দেশেও আগেই দিয়ে রেখেছে উত্তরাখণ্ড পুলিশ। কোনও হোটেল কর্তৃপক্ষ তা না মানলে আইনি পথে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওই পুলিশকর্তা। 

লকডাউন না মানায় গত রবিববার উত্তরখণ্ডে ৯৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয়েছে ২৭৪ জনকে। ইতিমধ্যে রাজ্যটিতে লকডান বিধি না মানায় মামলা দায়ের হয়েছে ১,৪০১ জনের বিরুদ্ধে। গ্রেফতার হয়েছেন ৫,৫৩৯ জন। 

এদিকে গত রবিবার রাজ্যে নতুন করে কোনও করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়নি। এই নিয়ে গত চার দিনে উত্তরাখণ্ডে কেউ করোনায় আক্রান্ত হননি বলে দাবি প্রশাসনের। বর্তমানে রাজ্যটিতে করোনা সংক্রমমের সংখ্যা ৩৫। এখনও পর্যন্ত কোনও মৃত্যুর খবর নেই।