মুম্বইয়ের কুখ্যাত মাফিয়া ডন ছোটা রাজন। শুক্রবার তার মৃত্যু নিয়েই ছড়ালো বিরাট জল্পনা। এদিন এক সূত্র মতে হঠাতই খবর পাওয়া যায়, নয়াদিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সেস বা এইমস (AIIMS) হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগ জনিত কারণে মৃত্যু হয়েছে আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন রাজেন্দ্র নিকলজে ওরফে ছোটা রাজন-এর। তবে সংবাদমাধ্যমে এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পরই দিল্লি পুলিশ এবং এইমস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে ছোটা রাজনের মৃত্যুর খবর অস্বীকার করা হয়।

করোনা আক্রান্ত হওয়ায়, গত ২৬ এপ্রিল এই মাফিয়া ডনকে এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ওই দিন দায়রা আদালতে, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তাঁকে হাজির করার কথা ছিল। কিন্তু, তিহার কারাগারের জেলর টেলিফোনে আদালতকে জানান, রাজন-এর কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফল ইতিবাচক এসেছে। তাই তাকে এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফলে, হাজিরা দিতে পারবে না সে। ২০১৫ সালে, ইন্দোনেশিয়ার বালি থেকে প্রত্যর্পণের পর থেকে সে তিহার কারাগারেই বন্দি আছে।

ছোটা রাজনের করোনায় কিন্তু মৃত্যুর মারাত্মক ঝুঁকি রয়েছে। তিহার কারাগার সূত্রে জানা গিয়েছে, ৬২ বছর বয়সী এই আন্ডারওয়ার্ল্ড ডনের, ডায়াবেটিস, হার্টের সমস্যা, কিডনির সমস্যা, হার্নিয়া, ল্যাপারোটোমি, হাইপারটেনশন-সহ বেশ কয়েকটি কমরেবিডি বা সহঅসুস্থতা রয়েছে। যেগুলি করোনাভাইরাস সংক্রমিতদের মৃত্যুর ঝুঁকি অনেকটাই বাড়িয়ে তোলে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

"

২০১১ সালে সাংবাদিক জ্যোতির্ময় দে-কে হত্যার দায়ে ছোটা রাজনকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছিল। তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা দেওয়া হয়েছিল। গত মার্চ মাসে, মুম্বইয়ের একটি বিশেষ আদালত এই গ্যাংস্টার এবং তার গ্যাং-এর আরও ছয়জন এক রিয়েল এস্টেট উদ্যোগপতিকে হত্যার চেষ্টার দায়ে দোষী সাব্যস্ত করেছে। সকলকেই দশ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।