বিধানসভা ভোট মিটতেই কেরলে লকডাউন ঘোষণা করল পিনারাই বিজয়নের সরকার। কেন্দ্রীয় সরকার দেশজুড়ে লকডাউনের পথে না হাঁটলেও একের পর এক রাজ্যে কিন্তু লকডাউন করে ফেলছে। মহারাষ্ট্র, দিল্লি, কর্ণাটক, ওডিশা, গোয়া, মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা, পঞ্জাব সহ বেশ কিছু রাজ্যে এখন চলছে লকডাউন। কেরলে করোনার দ্বিতীয় দফার সংক্রমণের ঢেউ রুখতে শনিবার, ৮ মে সকাল থেকে শুরু হচ্ছে লকডাউন। আপাতত ১৬ মে পর্যন্ত চলবে লকডাউন। আজ, বৃহস্পতিবার এমন কথাই ঘোষণা করলেন সদ্য ভোটে জিতে এসে ক্ষমতায় ফিরে মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন এমন কথাই জানালেন। ক দিন আগে দেশের শীর্ষ আদালত করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে কেন্দ্র সরকার ও রাজ্যগুলিকে লকডাউনে যাওয়ার প্রস্তাব করেছিল। ভারতকে লকডাউনে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে মার্কিন প্রশাসনও। 

আরও পড়ুন: আগামী কয়েক সপ্তাহে ভারতে করোনায় মৃত্যুর হার দ্বিগুণ হতে পারে, গবেষণায় উঠে এল ভয়ঙ্কর তথ্য

ভোটপর্ব শেষ হতেই কেরলে সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে গিয়েছে। গতকাল, বুধবার দৈনিক ৪১,৯৫৩টি নতুন সংক্রমণের কেস এসেছে। যা রাজ্যে রেকর্ড। তাই আর কোনও উপায় না দেখেই ভগবানের আপন দেশও লকডাউনের পথেই হাঁটল। করোনার প্রথম ঢেউটা গোড়ায় দারুণ সামলেছিল কেরালা।

আরও পড়ুন: করোনায় প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজিত সিং, শোকপ্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর

গোটা দেশে কেরল মডেল নিয়ে চর্চাও হয়েছিল। তবে পরবর্তীকালে আর রোখা যায়নি সংক্রমণ। এখনও পর্যন্ত কেরলে ১৭ লক্ষ ৪৩ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।  এদিকে, দক্ষিণ ভারতে ক্রমশ খারাপ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। কেরলের পাশাপাশি অন্ধ্রপ্রদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ঝাপটা ক্রমশ আছড়ে পড়ছে। আজ থেকে তামিলনাড়ুতে জারি হয়েছে কড়া করোনা বিধি। বন্ধ থাকছে বাজার, শপিং মল।