পৃথিবীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এদেশেও করোনা সংক্রমণের ঘটনা। ইতিমধ্যে তা ছাড়িয়ে চলে গিয়েছে হাজারের গণ্ডি। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। আর এর মধ্যেই আশার আলো দেখাল তেলেঙ্গানা। রাজ্যে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৭০ শতাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সোমবার হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে ১১ জনকে। জানালেন মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও। 

সাংবাদিক সম্মলনে রাও জানান, "সব প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নীরিক্ষার পর সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। বর্তমানে রাজ্যে ৫৮ জনের চিকিৎসা চলছে।"

মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, " বিদেশ থেকে আসা ২৫,৯৩৭ জনকে সরকার নজরদারিতে রেখেছে। আগামী ৭ এপ্রিল তাঁদের কোয়ারেন্টাইন পর্ব শেষ হতে চলেছে।" রাজ্যে বর্তমানে নজরদারিতে রয়েছেন মোট ২৬,৯৩৭ জন। কিন্তু এখনও পর্যন্ত নতুন কোনও সংক্রমণের ঘটনা ঘটেনি। আর লকডাউনের কারণে বিদেশ থেকেও কেউ আসতে পারেননি। ফলে ৭ এপ্রিল ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষ হলে রাজ্যে নতুন করে করোনা সংক্রমণের সম্ভাবনা প্রায় থাকবে না বলেই আশা চন্দ্রশেখর রাওয়ের। 

 

 

যদি নতুন করে রাজ্যে করোনা সংক্রমণের ঘটনা না ঘটে তবে ৭ এপ্রিলের পর তেলেঙ্গানায় আরও কোনও করোনা আক্রান্ত থাকবেন না বলেই জানান মুখ্যমন্ত্রী। চিনি বলেন, " পরিস্থিতি দ্রুত স্বাভাবিক করতে, তাই লকডাউনের সময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখা উচিত।"

এদেশেও এবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের দেখাভালে রোবট, পথ দেখাল তামিলনাড়ু

করোনার থাবায় বন্ধ হয়েছে উৎপাদন, বিশ্ব জুড়ে চরমে এবার 'কন্ডোম' সংকট

স্বস্তির খবর দিল আইআইটি, করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে কারা জানতে এবার তৈরি হল অ্যাপ

গত ২ মার্চ তেলেঙ্গানায় প্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল। সুস্থ হয়ে ওঠার পর গত ১৩ মার্চ তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দওয়া হয়। গত রবিবারই 'মন কি বাত' অনুষ্ঠানে করোনা যুদ্ধে জিতে ফিরে আসা ওই ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। হায়দরাবাদের গান্ধী হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা হয়েছিল। 

এখনও পর্যন্ত তেলেঙ্গানায় ৭০টি করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে। এদের মধ্যে রবিবার নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ জন। গত শনিবার রাজ্যে প্রথম করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে এক ব্যক্তির। মৃত ব্যক্তি হায়দরাবাদের বাসিন্দা। ৭৪ বছরের ওই বৃদ্ধ কয়েকদিন আগেই দিল্লি থেকে ফেরেন। ওই দিনই নতুন করে ৮ জনের শরীরে সংক্রমণের খবরও পাওয়া গিয়েছে।