কলেজের গেটে তালা ঝুলছে। লকডাউনের জেরে শিকেয় ওঠেছে পঠনপাঠন। সিলেবাস শেষ হবে কী করে! অনলাইনে পঠনপাঠন চালু করার সিদ্ধান্ত নিল কর্তৃপক্ষ।  ই-ক্লাস চলছে উত্তর দিনাজপুরের ইটাহারের মেঘনাথ সাহা কলেজে। খুশি ছাত্রছাত্রীরা।

আরও পড়ুন: সরকারি স্কুলের পড়ুয়াদের ক্লাস দূরদর্শনে, প্রশ্ন পাঠাতে হবে হোয়াটসঅ্যাপে

'কাছাকাছি নয়, থাকুন দূরে দূরে।' করোনা সতর্কতায় লকডাউন চলছে রাজ্যে। ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত স্কুল, কলেজ, এমনকী অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রগুলিও বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। কিন্তু বছরের মাঝপথে যদি পঠনপাঠন বন্ধ থাকে, তাহলে তো সিলেবাস শেষ হবে না! বিপাকে পড়বেন পড়ুয়ারাই। তাহলে উপায়? যে যাঁর বাড়ি থেকে ভিডিও কনফারেন্সে আলোচনায় বসেন ইটাহার মেঘনাথ সাহা কলেজের অধ্যাপকরা।  সকলেই একমত হন যে, লকডাউনের মাঝে পঠনপাঠন চালু রাখতে গেলে অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে ই-ক্লাস চালু করা ছাড়া উপায় নেই। সেইমতো শুক্রবার থেকে ই ক্লাস চালু হয়ে গিয়েছে কলেজে। প্রযুক্তিগত এই প্রক্রিয়াটিকে পরিচালনার জন্য গঠন করা হয়েছে ই-ক্লাসরুম কমিটিও।

আরও পড়ুন: লকডাউনের মাঝে নয়া বিপত্তি, প্রাথমিক স্কুলে এবার বসল মদের আসর

আরও পড়ুন: জ্বর ও সর্দির উপসর্গ, বারাসতে করোনা আতঙ্কে আত্মঘাতী বৃদ্ধ

আরও পড়ুন: গায়ে লাঠি বেঁধে বহরমপুরের প্রৌঢ়র সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং পালন, ভাইরাল হল ভিডিও

কীভাবে চলছে এই ই়-ক্লাস? জানা গিয়েছে, কলেজে পোর্টালে বিভিন্ন বিষয়ে নোটস ও প্রশ্নোত্তর আপলোড করছেন অধ্যাপকরা। হয় ফোন নম্বর অথবা নিজস্ব আইডি ব্যবহার করে ই-ক্লাসে যোগ হচ্ছেন পড়ুয়ারা। প্রয়োজনমতো স্টাডি মেটিরিয়ালস ও নোটস সংগ্রহ করে নিচ্ছেন তাঁরা। এভাবেই সপ্তাহ তিনেক চলবে পঠনপাঠন। যদিও কোনও বিষয় বুঝতে অসুবিধা হয় বা কোনও প্রশ্ন থাকে, তাহলে ই-ক্লাসরুমের মাধ্যমে অধ্যাপকদের সঙ্গে কথাও বলা যাবে।  ইটাহারের মেঘনাথ সাহা কলেজের অধ্যক্ষ মুকুন্দ মিশ্র বলেন, 'করোনা ভাইরাসের সংকটের আঁচ পড়েছে শিক্ষাঙ্গনেও। দেশের সর্বত্রই পঠনপাঠন ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। পড়ুয়াদের কথা চিন্তা করেই আমাদের কলেজে ই-ক্লাস রুম চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।'