গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানে নতুন করে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৩৩৪ জন। যার ফলে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫,৩৭৪। রবিবার কোভিড ১৯ রোগে মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। যার ফলে ইমরানের দেশে বর্তমানে করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা ৯৩। পাকিস্তানের স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানাচ্ছে, আক্রান্তদের মধ্যে ১,০৯৫ জন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তবে দেশে করোনা আক্রান্ত ৪৪ জনের অবস্থা এখনও সংকটজনক। 


আসছে কি তবে 'সেকেন্ড ওয়েভ', চিনে নতুন করে করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তে ঘনীভূত আশঙ্কার মেঘ
ধারাভিতে ফের মৃত্যু করোনায়, এশিয়ায় বৃহত্তম বস্তিকে বাঁচাতে ভরসা সেই হাউড্রক্সিক্লোরোকুইন
ডিপার্টমেন্টাল স্টোর বাড়াচ্ছে সংক্রমণের আশঙ্কা, খোলা বাজারকেই ভোট বিশেষজ্ঞদের

পাকিস্তানে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে পঞ্জাব প্রদেশে। এখানে আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই হাজারের বেশি। এরপরেই রয়েছে সিন্ধ প্রদেশ। এখানে সংখ্যা প্রায় দেড় হাজার। তারপরে রয়েছে যথাক্রমে খাববার পাখটুখাওয়া, বালোচিস্তান, গিলগিট বালতিস্তান। রাজধানী ইসলামাবাদে করোনা সংক্রমণের শিকার ১৩১ জন। পাক অধিকৃত কাশ্মীরে কোভিড ১৯ রোগে আক্রান্ত ৪০ জন। 

এখনও পর্যন্ত পাকিস্তানে ৬৫,১১৪ করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা হয়েছে ৩,২৩৩টি। কোরনা পরিস্থিতি সামলদাতি ভারতের মত পাকিস্তানেও ৩ সপ্তাহের লকডাউন চলছে। যার শেষ হতে চলেছে আগামী মঙ্গলবার। লকডাউন সত্বেও দেশটিতে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা উর্দ্ধমুখী। এই অবস্থায় লকডাউন বাড়ান নিয়ে উচ্চপর্যায়ের মিটিং ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সূত্রের খবর, প্রতিবেশীদেশটিও লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর পথেই হাঁটছে। আর এর মধ্যেই পাকিস্তানের এক হাসপাতালের ভিডিও শেয়ার করে বসলেন ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার ও বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীর। যা ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

 

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে পাকিস্তানের এক হাসপাতালের কোভিড ১৯ ওয়ার্ডে রোগীদের  মাঝখানে নাচ করছেন কয়েকজন চিকিৎসক। সকলের পরণেই রয়েছে সুরক্ষা বর্ম। নাচের সঙ্গে বাজছে পাকিস্তানের জনপ্রিয় একটি গানও।

ভিডিওটি শেয়ার করে গম্ভীর লিখেছেন, "যেখানেই থাক এক গান শওন করোনা", সঙ্গে নয়াপাকিস্তান হ্যাসট্যাগও দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ। 

করোনাভাইরাস সংস্পর্শ থেকে সরায়। সেজন্য বারবারে এই  রোগ থেকে বাঁচতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। এই রোগে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে রোগীদের সেবাকরে চলা চিকিৎসকরাদের। তাই নিজেদের ও পারিপার্শ্বিক চাপ কাটাতেই পাক চিকিৎসকরা হাসপাতালের ভেতরে নাচছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। 

বিশ্বজুড়ে ক্রমেই বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে গোটা দুনিয়ায় তা ১৮ লক্ষের বেশি। মৃতের সংখ্যা সোয়া লক্ষ ছাড়িয়েছে। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের অনুপ্রাণিত করতে বিভিন্ন দেশের চিকিৎসকার নানা পন্থা নিচ্ছেন। কোথাও সকলে মিলে  গান গাইছেন, কোথাও আবার প্রার্থনা করছেন। ইতিমধ্যে সেইসব ভিডিও নেট দুনিয়ায় জনপ্রিয় হয়েছে।