জে কে রাউলিং। মানেই যাঁর পরিচয়। বিখ্যাত হ্যারি পটার সিরিজের লেখিকা জে কে রাউলিং-কে চেনেন না সাহিত্য জগতে এমন মানুষের সংখ্যা হাতে গোনা। দনিয়াজোড়া খ্যাতি সম্পন্ন সেই লেখিকার শরীরেও নাকি বাসা বেঁধেছিল মারণ করোনাভাইরাস। এমন দাবিই করলেন খোদ হ্যারি পটারের স্রষ্টা রাউলিং। 

সম্প্রতি তিনি করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছিলেন বলে জানান রাউলিং। দুই সপ্তাহ ধরে কোভিড ১৯ রোগের সব লক্ষণ তাঁর শরীরে দেখা গিয়েছিল বলে দাবি করেছেন লেখিকা। তবে তিনি এখন পুরোপুরি সুস্থ বলেই সকলকে আশ্বস্ত করেছেন জে কে রাউলিং।

 

 

এক ট্যুইটবার্তায় স্কটল্যান্ডের এডিনবার্গ থেকে হ্যারি পটারের লেখিকা জানান, ‘গত দুই সপ্তাহ আমার শরীরে বেশ কিছু উপসর্গ দেখা গেছে, যা করোনাভাইরাসের সংক্রমণের সঙ্গে মিলে যায়। কিন্তু পরীক্ষা করাইনি।'

করোনা টেস্ট না করালেও অবশ্য নিজেকে এখন সুস্থ বলেই দাবি করছেন হ্যারি পটারের স্রষ্টা। তাহলে কীভাবে মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মুক্তি পেলেন রাউলিং। সেই পর্দাও অবশ্য ফাঁস করেছেন লেখিকা। 

ফের নতুন কীর্তি তবলিগিদের, এবার হাসপাতালের আইসোলেশন থেকে পালাল করোনা আক্রান্ত

ট্রাম্পের হুঁশিয়ারিতেই উঠে গেল নিষেধাজ্ঞা, ম্যালেরিয়ার ওষুধের ফের রফতানি শুরু করছে ভারত

বাতাস থেকে দ্রুত ছড়ানোর কোনও প্রমাণ মেলেনি, মারণ ভাইরাস নিয়ে আশার আলো দেখাল আইসিএমআর

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন রাউলিং, যাতে দেখিয়েছেন কিভাবে নিঃশ্বাস নেয়ার অনুশীলন করে সুস্থ হয়েছেন তিনি। রাউলিং লেখেন, ‘দয়া করে এটি দেখুন, কুইন্স হাসপাতালের চিকিৎসকরা দেখিয়েছেন, কিভাবে এটি অনুশীলন করলে শ্বাস-প্রশ্বাসগত সমস্যা থেকে আরোগ্য পাওয়া যায়। এ কৌশল আমার সুস্থতায় খুবই সহায়ক হয়েছে। আমি এখন পুরোপুরি সুস্থ।’

 

 

চিকিৎসক স্বামী নিল মুরের পরামর্শ মেনে চলেই তিনি সুস্থ হয়ে উঠেছেন বলে জানিয়েছেন রাউলিং। তিনি লেখেন, ‘আমি এখন পুরোপুরি সুস্থ, আপনাদের সঙ্গে সেই কৌশলই শেয়ার করলাম, যা আমার ডাক্তার আমাকে করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন, এর জন্য কোনো বাড়তি খরচ নেই, নেই ক্ষতিকর প্রভাবও। সবাই ভালো থাকুন নিরাপদে থাকুন।'