ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের পাশাপাশি ছড়িয়ে পড়ছে একাধিক গুজব। যা বিভ্রান্ত করছে লাখ লাখ সাধারণ মানুষকে। যেমন, চিকেন থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে-এই ধারণা বিশ্বাস করেছেন অনেকেই। ছেড়েছেন চিকেন খাওয়া। কোথাও আবার দাবি করা হয়েছে, অ্যালকোহল সেবনে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব। অর্থাত্‍, মদ্যপান করলেই নাকি সেরে যাবে করোনা ভাইরাস!

শুধু মদ্যপানেই নয়, গায়ে, মাথায় অ্যালকোহল ছিটিয়ে নিলে করোনাভাইরাস শরীরের ধারে-কাছেও ঘেঁষবে না। অদ্ভুতভাবেই এই তত্বকে বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন অনেকে। অথচ, যথাযথ বিজ্ঞানসম্মত সাবধানতার বালাই নেই!  

তাই কাউকে সামনে পেলেই ইরানের এক স্বাস্থ্যকর্তা একটা কথাই বলছেন, ‘দয়া করে করোনা থেকে বাঁচতে কারখানায় ব্যবহৃত অ্যালকোহল খাবেন না’। তার কাতর আবেদনের একটাই ‌কারণ, করোনা সংক্রমণের ভয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া গুজবে কান দিয়ে ইরানের মানুষ খাচ্ছেন কারখানায় ব্যবহৃত অ্যালকোহল। 
সেই বিষাক্ত মেথানল মিশ্রিত অ্যালকোহল খেয়েই এখন পর্যন্ত ইরানে মৃতের সংখ্যা প্রায় ৪০০ কাছাকাছি। শুধু কি তাই, হাজারের বেশি মানুষ কেউ হয়ে অন্ধ, কেউ বা রয়েছেন কোমায়। ২৬ মার্চ ফের ঘটেছে এক  মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। মেথানল মিশ্রিত অ্যালকোহল খেয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ৩০০ জন। 

ওই মদের বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজারের বেশি ইরানি। দেশটির বার্তা সংস্থা ইরনা জানাচ্ছে, বিষাক্ত মেথানল মিশ্রিত অ্যালকোহল খেয়ে যন্ত্রণা, শ্বাসকষ্টে ভুগছেন অনেকে। তাদের মধ্যে ৫ বছর বয়সী এক শিশুও রয়েছে।

আহওয়াজ ইউনিভার্সিটি অব মেডিকেল সায়েন্সের মুখপাত্র আলি এহসান জানান, মদ পানে করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়া যায় বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো গুজবে বাস্থা রেখেছেন বহু মানুষ। যদিও ইরানি আইন অনুযায়ী, সেখানে মুসলিমদের জন্য মদ উৎপাদন, বিক্রি ও পান করা নিষিদ্ধ। 

প্রায় ৮০মিলিয়ন জনসংখ্যার ইরানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফরোয়ার্ড করা মেসেজে ছড়িয়ে পড়ছে গুজব। তেমনই একটি মেসেজে দাবি করা হয়েছে, এক ব্রিটিশ স্কুল শিক্ষক ও অন্যান্য মধুমিশ্রিত হুইস্কি খেয়ে নিজেদের করোনা নিরাময় করেছেন। এরপর ইরানে অনেকেই করোনা রোখার পন্থা হিসেবে মিথানল খেতে শুরু করেন।
প্রসঙ্গত, গত ৯ মার্চ করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে দেশটির খুজেস্তান ও আলবার্জ প্রদেশে মদ্য পান করে ৪৪  ইরানির মৃত্যু হয়। হাসপাতালে ভর্তি হন ২০০ জনের বেশি। ওয়ার্ল্ডোমিটারে প্রকাশিত তথ্যমতে, আক্রান্তের দিক থেকে পিছিয়ে থাকলেও মৃত্যুর দিক থেকে চতুর্থ স্থানে ইরান। দেশটিতে এই ভাইরাসে ২ হাজার ২৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর আক্রান্ত হয়েছে ২৯ হাজার ৪০৬ জন।

সংক্রমণ বাড়ছে দেখে, ইরানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়াচ্ছে একের পর এক গুজব। আর সেই গুজবে কান দিয়েই কয়েক হাজার মানুষ খেতে শুরু করেছেন বিষাক্ত মেথানল মেশানো অ্যালকোহল। আর তার ফলস্বরূপ মৃত্যুমিছিল।