তখনও দিনের আলো ফোটেনি। কিন্তু নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী রামজন্মভূমিতে প্রবেশ করলেন রাম লাল। বুধবার ভোর বেলা মানস ভবনের কাছে একটি অস্থায়ী কাঠামো তৈরি করে সেখানেই রাম লালার মূর্তি প্রতিষ্ঠা করা হয়। আর এই অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তাই ছিলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। রাম মন্দির তৈরির জন্য এদিন উত্তর প্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী ১১ লক্ষ টাকার চেকও প্রদান করেন। এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মঙ্গলবার রাতেই অযোধ্যা পৌঁছ গিয়েছিলেন যোগী আদিত্যনাথ। 

গতকাল রাতেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে আগামী ২১ দিনের জন্য লকডাউনের কথা ঘোষণা করেছিলেন। একই সঙ্গে তিনি আবেদন জানিয়েছিলেন যে কোনও রকম জমায়েত করতে না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সবরকম সচতন পদক্ষেপ নেওয়ারও অনুরোধ জানিয়েছিলেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর ১২ঘণ্টাও কাটেনি। উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ রীতিমত জমায়েত করেই রাম লালার মূর্তি স্থানান্তরিত করলেন। এই পদক্ষেপ ঘিরে সমালোচনার ঝড় উঠতে শুরু করেছে। কারণ খুব ছোট করে অনুষ্ঠান করলেও বুধবার ভোরের এই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন প্রায় ২০জন। ছিলেন বেশ কিছু দর্শনার্থী ও রামলাল ভক্তও। তাই সেখান থেকে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। 

গতকালও উত্তর প্রদেশে নতুন করে আরও দুজন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেছে। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫। করোনার সংক্রমণ রুখতে প্রধানমমন্ত্রী বারবার  জমায়েত না করার আবেদন জানিয়েছেন। এদিন সকালেও তিনি ট্যুইট করেন। সেখানেও বলেন, এই সময়টা উৎসবের সময়। প্রথা অনুযায়ী এই সময় আমরা নববর্ষের অনুষ্ঠান সহ একাধিক অনুষ্ঠান পালন করি। কিন্তু এখন উৎসব পালন করার সময় নয়। গোটা দেশই করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। উৎসবে না মেতে এখন আমাদের এই পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে হবে। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করব। 
 
শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থ কেন্দ্র ট্রাস্ট আগেই ঘোষণা করেছিলে আগামী ২ এপ্রিল ভূমিপুজো হবে। কিন্তু সেই সময় করোনা এত ভয়ঙ্কর আকার নেয়নি ভারতে। বর্তমান পরিস্থিতি অযোধ্যা প্রাশাসন আগামী দোশরা এপ্রিল পর্যন্ত সব তীর্থযাত্রীদের অযোধ্যায় প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর আজ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত গোটা দেশ জুড়েই চলবে লকডাউন। এই অবস্থায় মন্দির কর্তৃপক্ষ কী সিদ্ধান্ত সেই দিকেই তাকিয়ে রয়েছেন ভক্তরা। 

গত বছর নভেম্বর মাসে বহু বিতর্কিত অযোধ্যা মামলার রায় দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। তারপর থেকেই শুরু হয়েগেছে মন্দির তৈরির তোড়জোড়।