লোকসভা বা রাজ্যসভার অধিবেশন সাংসদদের হইহট্টগোলে বাতিল হয়ে যাওয়া নতুন কিছু নয়। আর তা হলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিরোধী দলগুলিকে দোষারোপ করেন শাসক দলের সাংসদরা। কিন্তু তা বলে খেলা দেখার জন্য সংসদের অধিবেশন বানচাল করার মতো অভিযোগ কি কখনও বিরোধীদের বিরুদ্ধে তুলেছে শাসক দলের কোনও সাংসদ? 

মঙ্গলবার রাজ্যসভার অধিবেশন মুলতুবি হওয়া নিয়ে অন্তত সেরকম অভিযোগই উঠে আসছে। বিজেপি সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তের অভিযোগ, ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের সেমিফাইনাল ম্যাচ দেখার জন্যই নাকি ছক কষে এ দিন রাজ্যসভার অধিবেশন ভেস্তে দিয়েছেন কংগ্রেস এবং তৃণমূল সাংসদরা। 

কর্নাটকে বিজেপি সরকার ভাঙার চেষ্টা করছে, কংগ্রেস সাংসদদের এই অভিযোগে এ দিন শুরু থেকেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজ্যসভার অধিববেশন। কংগ্রেস সাংসদদের হইহট্টগোলের জেরে সংসদের কোনও কাজই শুরু করা যায়নি। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তাঁরা। এর সঙ্গে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব সংস্থার বিলগ্নীকরণের প্রতিবাদে তৃণমূল সাংসদরাও বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। এর ফলে দুপুর পর্যন্ত অধিবেশন মূলতুবি করে দেন অধ্যক্ষ। 

ফের প্রশ্নোত্তর পর্বের জন্য অধিবেশনের কাজ শুরু হলে একইভাবে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন কংগ্রেস এবং তৃণমূল সাংসদরা। শেষ পর্যন্ত অনেক অনুরোধেও বিক্ষোভকারী সাংসদরা শান্ত না হওয়ায় প্রথমে বেলা দুটো পর্যন্ত এবং তার পরে দিনভরের মতো অধিবেশন মুলতুবি ঘোষণা করেন অধ্যক্ষ। 

অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যেতেই কংগ্রেস এবং তৃণমূল সাংসদদের বিরুদ্ধে অভিনব অভিযোগ আনেন বিজেপি-র স্বপন দাশগুপ্ত। তিনি অভিযোগ করেন, 'আমি নিশ্চিত ক্রিকেট ম্যাচ দেখার জন্যই কংগ্রেস এবং তৃণমূল সাংসদরা এ দিন গোটা দিনের মতো সংসদের অধিবেশন ভেস্তে দিলেন। এ ছাড়া আমি আর কোনও কারণ দেখছি না।' 

বিজেপি সাংসদ নেহাতই ঠাট্টাচ্ছলে এই টুইট করলেন, নাকি তিনি সত্যিই এমন অভিযোগ করতে চেয়েছেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে এ বিষয়ে কংগ্রেস বা তৃণমূলের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।