বিশ্বকাপ ২০১৯-এর ফাইনাল খেলা হযে গিয়েছে এক মাস হল। কিন্তু এখনও সেই ফাইনাল নিয়ে বিতর্ক থামল না। ঐতিহাসিক লর্ডস স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। একেবারে শুরুর থেকে দুই দলে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়। শেষে ইংল্যান্ডের জয়ের জন্য দরকার ছিল ৩ বলে ৯ রান। আর ওই টানটান উত্তেজনার সময়ই মার্টিন গাপ্টিল-এর একটি ওভার থ্রো নিয়ে আম্পায়াররা ভুল সিদ্ধান্ত নেন, যা থেকে এই বিতর্কের শুরু।

লঙ অন থেকে ব্য়াটিং ক্রিজের উইকেট লক্ষ্য করে বলটি ছুড়েছিলেন গাপ্টিল। কিন্তু বলটি অদ্ভূভাবে বেন স্টোকস-এর ব্য়াটে লেগে সোজা বাউন্ডারিতে চলে যায়। মাঠের দুই আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা ও মারিয়াস এরাসমাস নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে ইংল্যান্ডকে ৬ রান দিয়েছিলেন। অথচ ওভারথ্রো সংক্রান্ত আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ওই বলে ৫ রান হওয়ার কথা ছিল বলে অভিযোগ ওঠে। আর এই মতকে প্রাক্তন আম্পায়ার সাইমন টাফেল সমর্থন করায় তার পালে আরও হাওয়া লাগে।

এই বিরতর্কের মুখে পড়ে অবশেষে আগামী মাসে ওই ওভারথ্রোর ঘটনা পুনর্বিবেচনা করতে চলেচে আইসিসি। মাইক গ্যাটিংয়ের নেতৃত্বে মেরিলিূবোন ক্রিকেট ক্লাবের এক বৈঠকের পর এমনটাই জানানো হয়েছে। গ্য়াটিং জানান, সেপ্টেম্বর মাসে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে হওয়া ওই বিতর্কিত ঘটনা পুনর্বিবেচনা করবে ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট কমিটির সদস্যরা।  

যদি ৬ রানের বদলে ৫ রান হত তাহলে ইংল্যান্ড সুপার ওভারে খেলা গড়ানোর আগেই হেরে যেত। কিন্তু ওই ঘটনার পুনর্বিবেচনা হলেও শেষ পর্যন্ত বিশ্বচ্যাম্পিয়ন বদলে যাহবে এমনটা মনে করছে না ক্রিকেট মহল। কারণ ম্য়াচের ফলাফলও ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। ইংল্যান্ডকে বিশ্বজয়ী হিসেবে ঘোষণাও করা হয়ে গিয়েছে। কাজেই এখন নতুন করে আবার সব বদলে দেওয়া হবে, এমনটা কেউই মনে করছেন না। সম্ভবত পরবর্তী ক্ষেত্রে একই ধরণের ঘটনা ঘটলে কী করা যেতে পারে, সেই নিয়ে কিছু নির্দেশিকা আসতে পারে।