পাকিস্তান-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্য়াচে বিতর্ক ছিল হ্য়ারিস সোহেলের আউট নিয়ে। তাহির তাঁর ক্য়াচ ধরেছেন কি ধরেননি তা বুঝতে না পারায় আম্পায়ারের সফট সিগনালের উপর নির্ভর করেই তাঁকে নটআউট দিয়েছিলেন তৃতীয় আম্পায়ার। সোমবার আবার বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্য়াচে বিতর্ক মাথাচাড়া দিল লিটন দাসের উইকেট নিয়ে। বিতর্কের কেন্দ্রে সেই আম্পায়ারের সফট সিগনাল।

এদিন আফগান অফস্পিনারদের মোকাবিলা করতে সৌম্য সরকারে বদলে লিটন দাসকে দিয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করিয়েছিল বাংলাদেশ। বেশ ভালই ব্যাট করছিলেন লিটন। কিন্তু ইনিংসের পঞ্চম ওভারে ১৬ রানের মাথায় মুজিবুর রহমানের বলে ঘটে যায় বিপত্তি। ড্রাইভ রকরতে গিয়ে শর্ট কভার এলাকায় হাশমতুল্লা শহিদির হাতে ধরা পড়েন লিটন।

বলটি শহিদি সঠিকভাবে তালুবন্দী করতে পেরেছেন নাকি আগে মাটিতে পড়ে গিয়েছিল সেই সম্বন্ধে নিশ্চিত হতে না পারায় মাঠের আম্পায়াররা তা তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে পাঠান। তবে তার আগে সফট সিগনাল দেন আউট। তৃতীয় আম্পায়ার বারবার জুম করে দেকেও নিশ্চিত হতে না পারায় আম্পায়ারদের সফ সিগনাল অনুযায়ী তাঁকে আউট ঘোষণা করেন।

অথচ সফট সিগনালের নিয়ম আসার আগে আউট নিয়ে দ্বিধা থাকলে নটআউটই দেওয়া হত। কিন্তু এখন নিয়ম অনুযায়ী আম্পায়াররা সফট সিগনাল দিলে একমাত্র প্রযুক্তি অন্য কথা না বললে তা বদলাবার সুযোগ থাকে না তৃতীয় আম্পায়ের কাছে। আর এরই বলি হলেন লিটন দাস। এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেক বাংলাদেশী সমর্থকই।