ধোনির গ্লাভসে সেনাবাহিনীর 'বলিদান ব্যাজ'-এর প্রতীক। থাকা উচিত কি উচিত নয় তাই নিয়েই বেধেছে মহাবিতর্ক। এবার তাতে যোগ দিলেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি। এদিন তিনি টুইট করে একহাত নেন ধোনিকে। তিনি বলেন, ধোনি ইংল্যান্ডে ক্রিকেট খেলতে গিয়েছেন, মহাভারতের যুদ্ধ করতে নয়।

শুধু ধোনিই নয়, এই বিষয় নিয়ে ভারতীয় মিডিয়াকেও নিশানা করেন তিনি। ভারতীয় মিডিয়ায় এই নিয়ে বিতর্ক হওযাকে তিনি 'নির্বোধের মতো তর্ক' বলে কটাক্ষ করেছেন। তাঁর মতে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের একাংশ যুদ্ধ নিয়ে মত্ত। এদেরকে যুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়া, আফগানিস্তান বা রোয়ান্ডায় পাঠিয়ে দেওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ভারতের বিশ্বকাপ অভিযানের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ধোনির উইকেটকিপিং গ্লাভসে সেনার বলিদান ব্য়াজের প্রতীক ছিল। যার জন্য ভারতীয় ক্রিকেট ভক্তরা তাঁকে ধন্য ধন্য করলেও এতে আইসিসির বিঝিভঙ্গ হয়েছে বলে আপত্তি তুলেছে আইসিসি। ভারতীয় বোর্ডও অবশ্য পাল্টা চিঠি লিখে ধোনিকে ওই প্রতীক ব্যবহার করতে দেওয়ার অনুমতি চেয়েছে।

তবে বিসিসিআই-এর অনুরোধ আইসিসি মেনেও নিতে পারে। কারণ আইসিসির একটি সূত্রের দাবি, এমন কোনও প্রতীক যা কোনও রাজনৈতিক, ধর্মীয় বা বর্ণবিদ্বেষমূলক বার্তা দিতে পারে - তা ব্যবহারের ক্ষেত্রে আইসিসির নিষেধাজ্ঞা আছে। ধোনি ও ভারতীয় বোর্ড যদি আইসিসি-কে বোধঝাতে পারে যে সেনাবাহিনীর বলিদান ব্যাজ ওই ধরণের কোনও বার্তা দেয় না, তাহলেই ধোনি বিশ্বকাপে কিপিং গ্লাভসে ওই প্রতীক ব্যবহার করতে পারবেন।

এদিন বিসিসিআই-এর সিওএ কমিটির প্রধান বিনোদ রাই বলেন, প্যারা রেজিমেন্টের ওই প্রতীক কোনওভাবেই কোনও রাজনৈতিক বা ধর্মীয় বার্তা নয়, এটা শুধুমাত্রই সেনার পরিচয়।