মেঘলা আবহাওয়ায় শুক্রবার, সাউদাম্পটনের রোজ বোলে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠলেন ইংরেজ জোরে বোলাররা। ক্রিস ওকস-এর সুইং, জোফ্রা আর্চারের বাউন্স ও  মার্ক উডের গতি - সেই দাপটেই মাত্র ৬৩ রানে শেষ ৭ উইকেট হারাল ওয়েস্টইন্ডিজ। আর তার ফলেই ২৯.৪ ওভারে ১৪৪/৩ থেকে ৪৪.৪ ওভারে মাত্র ২১২ রানেই গুটিয়ে গেল ওয়েস্টইন্ডিজ ইনিংস।

গোটা ইনিংসে শুধু মাত্র চতুর্থ উইকেটে জুটিতে যখন নিকোলাস পুরান (৬৩) ও শিমরণ হেটমায়ার (৩৯) তখনই মনে হয়েছে ক্যারিবিয়ানরা বিশ্বের ১ নম্বর ওডিআই দলের সঙ্গে সমানে সমানে টক্কর দিচ্ছে। তার আগে ও পরে কিন্তু দাপট দেখালেন ইংরেজ পেস বোলাররাই বোলাররাই।

শুরুতে এভিন লুইস (২) ও ক্রিস গেইল (৩৬) দুজনেই পুল করতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে ধরা পড়েন। আর শাই হোপ এলবিডব্লু হয়ে যান (১১)। এরপরের একঘন্টাই ৮৯ রানের জুটি গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংস এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন পুরান ও হেটমায়ার। কিন্তু, অনিয়মিত বোলার জো রুট এসে দুটি উইকেট নিয়ে খেলা ঘুরিয়ে দেন।

এরপরও ছিলেন আন্দ্রে রাসেল। কিন্তু, তিনি ঠিক করেছেন পরিস্থিতি দেখবেন না। নিজের মনের আনন্দে ব্যাট করে যাবেন। অস্ট্রেলিয়া ম্যাচেও অতি আক্রমণাত্মক হতে গিয়ে উইকেট ছুঁড়ে দিয়েছিলেন। এদিনও তাই করলেন। রাসেলের এই খেলা কিন্তু ক্রমে ক্যারিবিয়ান দলের পক্ষে আত্মঘাতি হয়ে যাচ্ছে।

তবে এদিন আলাদা করে বলতেই হবে দুই ইংরেজ বোলার মার্ক উড ও জোফ্রা আর্চারের কথা। পিচ থেকে সামান্য সাহায্য পেতেই জামাইকার ছেলে আর্চার তাঁর দেশোয়ালিদের বাউন্সারে শুইয়ে দিলেন। ৯ ওভার বল করে মাত্র ৩০ রান দিয়ে তিনি তুলে নিলেন পুরান, ব্রেথওয়েট ও কটরেলের উইকেট তুলে নিলেন। আর মার্ক উড ৬.৪ ওভার বল করে ১৮ রান দিয়ে নিলেন হোপ, রাসেল ও গ্যাব্রিয়েলের উইকেট।