ক্রিকেট বিশ্বে এখন টানটান উত্তেজনা। আরও একটি বিশ্বকাপ শুরু হতে আর ২৪ ঘন্টাও বাকি নেই। এই বারের বিশ্বকাপ সবদিক থেকেই আগের সব বিশ্বকাপকে ছাপিয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। সম্প্রচার থেকে শুরু করে বিশ্লেষণ সব বিষয়েই নতুনত্ব এনেছে আইসিসি। আরও একটি বিষয় নিয়ে ক্রিকেট ভক্তদের আগ্রহ এখন তুঙ্গে। তা হল অ্যাওয়ে জার্সি।

এইবারই শুধু বিশ্বকাপেই নয় ক্রিকেট মাঠেই প্রথম ফুটবলের মতো অ্যাওয়ে জার্সি ব্যবহার করা হবে। যেমন ভারত আকাশী নীল রঙের জার্সি পরে খেলে। হুবহু এক রঙের না হলেও কাছাকাছি রঙের জার্সি পরেন আফগানিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও ইংল্যান্ড দলের ক্রিকেটাররাও। ফলে দূর থেকে দুটি দলকে মাঠে আলাদা করা সমস্য়ার।

একই সমস্যা রয়েছে পাকিস্তান, বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকার সবুজ রঙের জার্সি নিয়েও। তাই ফুটবল মাঠে যেরকম অ্যাওয়ে দলকে সম্পূর্ণ ভিন্ন রঙের অ্যাওযে জার্সি পরতে হয়, এবার আইসিসি নিয়ম করেছে ক্রিকেট বিশ্বকাপের দলগুলির ক্ষেত্রেও এই নিয়ম থাকবে।

ইংল্যান্ড আয়োজক দেশ হওয়ায় তারা সব ম্য়াচেই চিরাচিত জার্সি পরেই খেলতে পারবে। এছাড়া, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও ওয়েস্টইন্ডিজের ক্ষেত্রেও বাকিদের সঙ্গে রঙ গুলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা নেই। তাই এই দেশগুলিও একটি জার্সি পরেই খেলবে। বাকি দলগুলির ক্ষেত্রে একেকটি বিশ্বকাপ ভেন্যুকে হোম গ্রাউন্ড বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এর বাইরে গিয়ে খেললে এবং দুই দলের জার্সির রঙ এক হলে অ্যাওয়ে দল অন্য জার্সি পরে খেলবে।

এরপরই বিভিন্ন দলের নিয়মিত জার্সির বাইরে অ্যাওয়ে জার্সিগুলি কীরকম দেখতে তাই নিয়ে কৌতূহল তৈরি হয়েছে ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে। এখনও পর্যন্ত চারটি দল তাদের অ্যাওয়ে জার্সি প্রকাশ করেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা

দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যাওয়ে জার্সিটি করা হয়েছে হলুদ রঙের। তাদের চিরাচরিত সবুজ টিকে রয়েছে বুকে ও হাতায় ডোরা দাগ হিসেবে আর বুকে দেশের নামের হরফে। তাদের দুটি জার্সিই তৈরি করা হয়েছে সমুদ্রে জমা হওয়া প্লাস্টিক রিসাইকেল করে।

শ্রীলঙ্কা

চতুরভাবে শ্রীলঙ্কা দুটি জার্সিতেই একই রঙের স্কিম ব্যবহার করেছে। হলুদ আর নীল রঙের মিশ্রনে দুটি জার্সির বুকের নকশাও এক। শুধু হোম জার্সির ক্ষেত্রে বাকি অংশে প্রাধান্য রয়েছে নীলের, আর অ্যাওয়ে জার্সির ক্ষেত্রে ব্।যবহার করা হয়েছে হলুদ রঙ।

বাংলাদেশ

বিশ্বকাপের নতুন জার্সি উন্মোচনের পর বাংলাদেশে বেশ সমালোচনা হয়েছিল নতুন জার্সিটি নিয়ে। অনেকেই বলেছিলেন জার্টিতে সবুজ রঙের প্রাধান্য থাকায় সেটিকে পাকিস্তানের জার্সি বলে মনে হচ্ছে। দেশের পতাকার সঙ্গে মিলিয়ে সবুজের সঙ্গে সমানভাবে যে লাল রঙ ব্যবহার করা হত, জার্সিতে তার ব্যবহার কমে যাওয়া নিয়ে আপত্তি ছিল। অ্যাওয়ে জার্সিতে সেই ক্ষোভ সুদে -আসলে মিটিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আফগানিস্তান

শ্রীলঙ্কার মতো আফগানিস্তানও দুটি জার্সিতেই একই স্কিমের রঙ ব্যবহার করেছে। হোম জার্সিটির তুলনায় অ্যাওয়ে জার্সির নীলের শেড গাঢ়। সঙ্গে দুপাশ থেকে আড়াআড়ি লাল রঙ ব্যবহার করা হয়েছে। হাতাতেও রয়েছে লাল রঙ।

ভারত

ভারত এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের অ্যাওয়ে জার্সি প্রকাশ করে তবে শোনা যাচ্ছে উজ্জ্বল কমলা রঙের সঙ্গে গাঢ় নীল রঙের সমন্বয়ে জার্সিটি তৈরি করা হবে। আর তারপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারতের অ্যাওয়ে জার্সি কীরকম হতে পারে তার নানা নকশা তৈরি হচ্ছে। দেখে নেওয়া যাক এরকমই কিছু নকশা -