৩৭ বছর বয়সেও তিনি যে উইনিভার্স বস তা সকলেই মেনে নেবেন। আইসিসি বিশ্বকাপ  ২০১৯-এর তাঁর উপস্থিতি ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের শক্তি অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। যোগ্যতা অর্জনের টুর্নামেন্ট খেলে যাদের বিশ্বকাপের টিকিট জোগার করতে হয়েছে, তাদেরকেই এখন অনেকে বলছেন প্রথম চার দলের মধ্যে থাকলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। অবশ্য শুধু দলকে বিস্ফোরক সূচনা দেওয়াই নয়, বিশ্বকাপে তাঁকে আরও দায়িত্ব দিল ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট বোর্ড। মঙ্গলবার তাঁকে বিশ্বকাপের দলের সহঅধিনায়ক ঘোষণা করা হল।

এই বিষয়ে গেইল জানিয়েছেন যে কোনও ফর্ম্যাটেই দেশের প্রতিনিধিত্ব করাটা সময়ই তাঁর কাছে সম্মানের। তবে আসন্ন বিশ্বকাপকে তিনি তাঁর জন্য বিশেষ বলে মনে করেছেন। তিনি জানিয়েছেন দলের সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে অধিনায়ক ও দলের প্রত্যেককেই সাহায্য করাটা তাঁর কর্তব্য।

আগে গেইল জানিয়েছিলেন বিশ্বকাপের পরই অবসর নিতে চান। কিন্তু পরে ইংল্যান্ড সিরিজে দুর্দান্ত খেলার পর আবার সিদ্ধান্ত বদলের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। এইবারের বিশ্বকাপ অন্যতম সেরা টুর্নামেন্ট হতে চলেছে মনে করা হচ্ছে। গেইলের মতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিন্তু বিশ্বকাপে বেশ ভালোই খেলবে।

আপাতত আয়ারল্যান্ডে, আয়ারল্যান্ড ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলছে ওয়েস্টইন্ডিজ। এই সিরিজে খেলছেন না গেইল। তাঁর বদলে গত রবিরার আয়াল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের গোড়াপত্তন করেছেন শাই হোপ ও জন ক্যাম্ববেল। তাঁদের জুটিতে রেকর্ড ৩৬৫ রান ওঠে। একদিনের ত্রিকেটের ইতিহাসে ওই প্রথমবার একই সঙ্গে দুই গোড়াপত্তনকারী ব্যাটসম্যান ১৫০-এর বেশি রান করেছেন।

এই সিরিজের পর বিশ্বকাপের সরকারি প্রস্তুতি ম্যাচ হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আগামী ২৬ ও ২৮ মে তারিখেদক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুটি ম্যাচ খেলবে। তারপর ৩১ মে তারিখে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবেন হোল্ডার গেইল-রা।