অবসরের দিন বাবা সম্পর্কে বলতে গিয়ে যুবরাজ সিং বলেছিলেন, বাবা বরাবরই তাঁর কাছে ছিলেন 'ড্রাগন'-এর মতো। তবে অবসরের দিন দুয়েক আগে তাঁরা দুজনেই মন খুলে নিজেদের কথা পরস্পরকে বলেছিলেন এবং তাতেই তাঁদের  ঘনিষ্ঠতা বেড়েছে বলেও জানান যুবি। কিন্তু ফের ড্রাগনের মতোই আগুনে অভিযোগ বের হলো যুবির বাবা যোগরাজ সিং-এর মুখ থেকে। তাঁর দাবি, চ্যাপেলের জন্যই যুবির যে উচ্চতায় ওঠার কথা ছিল, সেই উচ্চতায় তিনি পৌঁছতে পারেননি।  

গ্রেগ চ্যাপেল ভারতের কোচ থাকার সময়, ম্যাচের আগে অনুসীলনে ক্রিকেটারদের ফিটনেস বাড়ানোর উদ্দেশ্যে খো খো খেলাতেন। সেই খো খো খেলতে গিয়েই একবার হাঁটুতে গুরুতর চোট পেয়েছিলেন যুবরাজ। বাঁহাতি অলরাউন্ডারের বাবার দাবি ওই চোটই যুবরাজকে কেরিয়ারে অনেকটা পিছিয়ে দিয়েছিল। নাহলে একদিনের ক্রিকেট ও টি২০ ক্রিকেটের যাবতীয় রেকর্ড ভেঙে দেওয়ার ক্ষমতা ছিল। ছেলের এতবড় ক্ষতি করার জন্য গ্রেগকে কোনওদিন তিনি ক্ষমা করবেন না বলেও জানিয়েছেন যোগরাজ।

এর আগে য়োগরাজ যুবলে সুযোগ না পাওয়ার জন্য সরাসরি দায়ী করেছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনিকে। বলেছিলেন ধোনি একদিন ভিখিরি  হয়ে যাবেন। বাবার সঙ্গে যুবরাজেরও কোনওদিনই সম্পর্কটা সহজ নয়। ক্যানসারের চিকিৎসার সময়ও মায়ের সঙ্গেই বিদেশে গিয়েছিলেন তিনি।

তবে যোগরাজ শুধু বিষোদ্গারই করেননি। একই সঙ্গে যুবরাজের ক্রিকেট শুরুর স্মৃতি চারণাও করেছেন। মাত্র দেড় বছর বয়সেই যুবিকে প্রথম ক্রিকেট ব্যাট-বল কিনে দিয়েছিলেন। আর ভারতের এই মহান অলাউন্ডারকে জীবনের প্রথম বলটি করেছিলেন তাঁর ঠাকুমা গুরনাম কৌর।