টি টুয়েন্টি সিরিজে নিউজিল্যান্ডকে ৫-০ ব্যবধানে হারিয়ে ওয়ান ডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিল ভারত। কিন্তু ওয়ান ডে সিরিজের শুরুটা ভালো হয়নি মেন ইন ব্লু-র। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে বিশাল রান করেও নিউজিল্যান্ডকে আটকাতে ব্যর্থ হয়েছে ভারত। প্রথম ম্যাচে জয় তুলে একটু স্বস্তিতে রয়েছে নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় ম্যাচে কামব্যাক করতে মরিয়া ভারত। 

প্রথম ম্যাচে দুজন নতুন ব্যাটসম্যান ভারতের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামেন। সেই দুজনই ভারতের ইনিংস ওপেন করতে নামেন। চোটগ্রস্থ ওপেনার রোহিত শর্মা এবং শিখর ধাওয়ানের জন্য পৃথ্বী শ এবং মায়াঙ্ক আগরওয়াল দলে সুযোগ পান। শুরুটা ভালো করলেও দলগত ৫০ রানে আউট হন পৃথ্বী। তার সংগ্ৰহ ছিল ২০ রান। ৩২ রান করে আউট হন আগরওয়াল। এরপর অবশ্য ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা সমস্যায় পড়েননি। হাফ সেঞ্চুরি করেন কোহলি, শতরান করেন শ্রেয়স আইয়ার। ১০৭ বলে ১০৩ রান করেন তিনি। মিডিল অর্ডারে নেমে ৬৪ বলে ৮৮ রানের একটি মারকাটারি ইনিংস খেলেন কে এল রাহুল। ২৬ রানের একটি ক্যামিও খেলেন কেদার যাদবও। যার ফলে স্কোরবোর্ডে ৩৪৭ রান তোলে ভারত। কিন্তু রস টেলরের শতরান এবং প্রথমদিকে হেনরি নিকলস ও শেষদিকে টম ল্যাথামের দুর্দান্ত ব্যাটিং ম্যাচ জিতিয়ে দেয় নিউজিল্যান্ডকে। টি টোয়েন্টি সিরিজ থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজে শেষ অবধি ক্রিজে থেকে ১০৯ রান করে দলকে ম্যাচ জেতাতে সবচেয়ে উপযোগী ভূমিকা নেন রস টেলর। পেসার থেকে শুরু করে স্পিনার, সবার বিরুদ্ধেই স্বচ্ছন্দ ছিলেন টেলর।

দ্বিতীয় ম্যাচে দলে কিছু পরিবর্তন হতে পারে। কেদার যাদবের জায়গায় দলে আসতে পারেন লেগস্পিনার চাহাল। শার্দুল ঠাকুরের বদলে দলে আসতে পারেন নভদিপ সাইনি। এর আগে পর পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে প্রথম ম্যাচ হারা সত্ত্বেও সিরিজ জিতেছে ভারত। নিউজিল্যান্ডেও সেই ঘটনা আবার ঘটিয়ে দেখাতে মরিয়া কোহলিরা।