সুপার সানডে আইপিএলের মেগা ফাইটে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব ও দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে ম্যাচে প্রথম ২০ ওভারে দুরন্ত ক্রিকেট সাক্ষি থাকল ক্রিকেট বিশ্ব। এদিন ম্যাচে প্রথম টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের অধিনায়ক কেএল রাহুল। ম্যাচের শুরুতেই দাপট দেখান কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বোলাররা। শুরুতেই রান আউট হয়ে ফেরত যান শিখর ধওয়ান। তারপর কার্যত আগুন ঝড়ান পঞ্জাবের তারকা পেসার মহম্মদ শামি।  তাকে যোগ্য সঙ্গত দেন শেলডন কটরেল ও ক্রিস জর্ডান।পৃথ্বী শ ও শেমরন হেটমায়ারকে আউট করেন তিনি। প্রথম পাওয়ার প্লেতে ৬ ওভারে দিল্লির স্কোর দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ২৩।

৩ উইকেট পড়ার পর ইনিংসের রাশ ধরেন দিল্লি ক্যাপিটালসের অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়র ও ঋষভ পন্থ। চুতর্থ উইকেটে ৭৩ রাবের পার্টনারশিপ করেন দুজনে। প্রয়োজন মত বিগ হিট করতেও দেখা যায় পন্থ ও শ্রেয়স জুটিকে। কিন্তু দলের ৮৬ রানের মাথায় ১৪ তম ওভারে তৃতীয় উইকেট পড়ে দিল্লির। তরুণ স্পিনার রবি বিষ্ণইয়ের বলে বোল্ড আউট হন পন্থ। ৩১ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। এরপর ১৫ তম ওভারে ফের মহম্মদ শামিকে বলে নিয়ে আসেন কেএল রাহুল। আর এসেই ফের দলকে সাফল্য এনে দেন তিনি। ৮৭ রানে পঞ্চম উইকেট পড়ে দিল্লির। শামির বলে ব্যক্তিগত ৩৯ রানে আউট হন দিল্লি ক্যাপিটালসের অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়র। পরপর ফের দু উইকেট পড়ে ফের চাপে পড়ে যায় দিল্লি। ১৫ ওভারের শেষে দিল্লির স্কোর দাঁড়ায় ৯৩ রানে ৫ উইকেট।

এরপর ক্রিজে আসেন অজি তারকা মার্কাস স্টয়নিস ও অক্সর প্যাটেল। কিন্তু বেশিক্ষণ ক্রিজে দাঁড়াতে পারেননি অক্সর প্যাটেল। শেলডন কটরেলের বলে ক্যাচ আউট হন তিনি। ৯৬ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতন হয় দিল্লির। এরপর দিল্লির ইনিংসের রাশ ধরেন মার্কাস স্টয়নিস। অশ্বিনকে সঙ্গে নিয়ে ঝড়ো ইনিংস খেলেন তিনি।  ১৯ ওভারের শেষ বলে কটরেলের বলে ব্যক্তিগত ৪ রানে আউট হন অশ্বিন। অপরদিকে নিজের ঝোড়ো ইনিংস চালিয়ে যান স্টয়নিস। কার্যত চায়-ছয়ের বন্যা বইয়ে দেন তিনি। মাত্র ২০ বলে নিজের অর্ধশতরান পূরণ করেন তিনি। ২১ বলে ৫৩ রান করে রান আউট হন তিনি।  শেষে ২০ ওভারে ১৫৭ রান করে দিল্লি ক্যাপিটালস। পঞ্জাবের হয়ে ৩ উইকেট নেন শামি, ২টি উইকেট নেন শেলডন কটরেল ও একটি উইকেট নেন রবি বিষ্ণই। পঞ্জাবের টার্গেট ১৫৮ রান।