২২ নভেম্বর ২০১৯, এই দিনটা ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে সোনার হরফে লেখা থাকবে। কারণ এই দিনের যে পথ চলা শুরু করল ভারতীয় ক্রিকেটর নতুন এক অধ্যায়। ইডেনে প্রথম টেস্ট খেলার ৮৭ বছর পর আরও একটা নতুন শুরু। দিন রাতের টেস্ট। আর এই ম্যাচ নিয়ে গোটা বাংলার মত গোটা দেশেও মজে আছে। দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ইডেনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটর প্রাক্তনদের। একাধিক অনুষ্ঠানে অংশ নিলেন সচিন-লক্ষণ-কপিল দেবরা। আর প্রতিটা অনুষ্ঠানেই তাদেঁর মুখ থেকে বেড়িয়ে এল ইডেন নিয়ে নস্টালজিয়ার কথা। 

 

 

আরও পড়ুন - শহর সেজেছে গোলাপি আলোয়, পরিকল্পনায় সফল ‘মহারাজ’ তৃপ্ত

টি-সেশনে পাঁচটি গলফ কার্ট বেড়িয়ে এল ক্রিকেটের নন্দন কাননের মাঠে। সেই গলফ কার্টে ছিলেন দেশের প্রক্তন অধিনায়করা। প্রথমে সচিন, তারপর রাহুল, তারপর কুম্বলে। তাদের পেছনের গাড়িতে ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটের তিন মুখ মিতালি রাজ, ঝুলন গোস্বামী ও শান্তা রঙ্গস্বামী। তাদের পেছনেই ছিলেন কপিল দেব, মহম্মদ আজহারউদ্দীন, ফারুখ ইঞ্জিনিয়র, চাঁদু বোরদে, গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ, দিলীপ বেঙ্গসরকর, শ্রীকান্তের মত প্রাক্তন ভারত অধিনায়করা। 

 

আরও পড়ুন - সৌরভ ভারতীয় ক্রিকেটের সেরা পাওনা, ইডেনে একান্ত সাক্ষাতকারে ফারুক ইঞ্জিনিয়ার

প্রথম সেশনের পর মাঠেই আড্ডায় মাতলেন সচিন, লক্ষণ, অনিল কুম্বলে, হরভজন সিংরা। ভারতীয় ক্রিকেটের একটা সোনালী অধ্যায় কেটেছে তাঁদের হাত ধরে। সেই সব কথাই উঠে এল জমটি আড্ডায়। সেখানে সৌরভের থাকার কথা থাকলেও সেটা সম্ভব ছিল না, কারণ এদিন তিনি খুব ব্যস্ত। তাই সৌরভকে ছাড়াই অস্ট্রেলিয়ার বিজয় রথ থামিয়ে দেওয়ার গল্প হল। আর ধারাভাষ্য দেওয়ার মাঝেই গম্ভীর-হরভজনদের আক্ষেপ যদি এমন দিনে তাঁরা মাঠে নেমে খেলতে পারতেন।

আরও পড়ুন - ভারতীয় পেসারদের বাউন্সারে কাত টাইগাররা, চোট পেয়ে হাসপাতালে লিটন