ক্রিকেট মাঠে ভারতীয় দলে নিজের দক্ষতা দেখিয়েই খেলেছেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার ফারুক ইঞ্জিনিয়ার। উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসাবে তিনি ছিলেন অন্যতম সেরা। ইডেন গার্ডেন্সে গোলাপি বলের টেস্টে  বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন এই প্রাক্তন ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে। আর সৌরভের সেই আমন্ত্রণ ফেলতে পারেননি তিনি। বয়স হয়ে গিয়েছে ৮১ বছর। তবুও ক্রিকেট মাঠে নিজের পায়ে হেটেই ঢোকেন এই প্রাক্তনী। আর সেই ফারুক ইঞ্জিনিয়ার ইডেন গার্ডেন্সে একান্ত সাক্ষাতকার মুখোমুখি হয়েছিলেন এশিয়ানেট নিউজ বাংলার। যোগ্য ব্যক্তি সভাপতি হয়েছেন বিসিসিআইয়ের এমনটাই মনে করছেন ফারুক। একই সঙ্গে মহারাজকে ভারতীয় ক্রিকেটের সেরা পাওনা হিসাবে দাবি করেন তিনি।

 

আরও পড়ুন, পিঙ্ক বলে ভারতীয় পেসারদের দাপট, সুপার ব্রেকের আগে ৬ উইকেট হারালো টাইগার্সরা

ভারতীয় ক্রিকেটে অন্যতম চমক দিয়েছেন প্রাক্তন অধিনায়ক ও বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। কলকাতায় সেই পিঙ্ক বলের টেস্ট দেখতে কলকাতায় এসে সৌরভের সুখ্যাতিতে পঞ্চমুখ ভারতের প্রাক্তন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ফারুক ইঞ্জিনিয়ার। ভারতীয় ক্রিকেটের সেরা প্রাপ্তি সৌরভ। অধিনায়ক সৌরভের পাশাপাশি ভারতীয় ক্রিকেটে প্রশাসক হিসেবেও ইতিমধ্যেই নজর কেড়েছেন তিনি । এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে গোলাপি বলের টেস্ট ম্যাচ করতে সফল মহারাজ। তাই মহারাজের সাফল্যে মেতে রয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে নিজের সময় পিঙ্ক বলে টেস্ট হলে নিশ্চই খেলতেন ভারতের প্রাক্তন উইকেটরক্ষক এমনটাও জানালেন ফারুক। প্রথম থেকেই কলকাতা ও ভারতীয় ক্রিকেট মহল মেতে ছিল এই পিঙ্ক বলের টেস্ট নিয়ে। ভারতের মাটিতে এই প্রথম হলো পিঙ্ক বলের ক্রিকেট। সেই সঙ্গে এই ম্যাচের উন্মাদনাও বেশ ভালো। তাই নিজের সময়ে এই বলে টেস্ট হলে খেলতে ইচ্ছুক ছিলেন ফারুক।

আরও পড়ুন, চা বিরতির আগেই শেষ বাংলাদেশ, গোলাপি বিপ্লব ভারতীয় পেসারদের

শুক্রবার খেলার প্রথম দিনে ভারতীয় পেসারদের বিরুদ্ধে চা পান বিরতির আগেই প্রথম ইনিংসে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ দল। সামি, ঈশান্ত উমেশদের পেস সামলাতে ব্যর্থ হন বাংলাদেশের মোমিনুল, লিটনরা। তবে সামি, ঈশান্তদের পেসের তুলনায় আরও জোরে বল করতেন ফারুক জুগের ক্যারিবিয়ান পেসাররা। তাঁদের পেস সামাল দেওয়া আরও কঠিন কাজ ছিল বলে মনে করেন। তবে ভারতীয় পেসারদেরও সুখ্যাতি করেন এই প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার।

অন্যদিকে, কিছুদিন আগে বিরাট কোহলির স্ত্রী অনষ্কা শর্মার বিষয়ে একটি মন্তব্য করে একটি বিতর্কের সৃষ্টি করে ফেলেছিলেন ফারুক। তবে মঙ্গলবার কলকাতায় এসে সে কথা জিজ্ঞাসা করলেও সেটাকে শুধু মাত্র মজা বলেই উড়িয়ে দিলেন ইঞ্জিনিয়ার। তিনি বলেন, এটা পুরোপুরি একটা মজা ছিল। বাচ্চা মানুষ ওরা তাই বুঝে উঠতে পারেনি। ওদের ব্যাপারে খারাপ বলে আমার কি লাব। সবটাই একটা ভুল বোঝাবুঝি।