ক্রিকেট বিশ্বকাপ শুরুর মুখেই জোরালো ধাক্কা খেলেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান আসিফ আলি। সোমবার পাকিস্তান টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মৃত্যু হয়েছে তাঁর ২ বছরের শিশুকন্য়ার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক হাসপাতালে কর্কট রোগের সঙ্গে লড়াই করছিল সে। এই মর্মান্তিক খবর পেয়েই ইংল্যান্ড ছেড়েছেন আসিফ। আমেরিকা হয়ে কন্য়ার দেহ নিয়ে তিনি পাকিস্তানে ফিরবেন।

দীর্ঘদিন ধরেই এই মারণ রোগে ভুগছিল আসিফের কন্যা। গত মাসেই শেষের দিকে তিনি জানিয়েছিলেন তাঁর মেয়ের দেহে কর্কটরোগ স্টেজ ফোর-এ পৌঁছে গিয়েছে। তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কথাও জানান পাক ব্য়াটসম্যান। এর জন্য় পাকিস্তান ও আমেরিকা দুই দেশের দূতাবাসই তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছিল। তড়িঘড়ি এক ঘন্টারক মধ্যে তাঁর মার্কিন ভিসার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, সকলের প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হল।

এই দুঃসময়ে পাক ক্রিকেট মহল তো বটেই ক্রিকেট বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকেই আসিফ আলির পাশে থাকার বার্তা এসেছে। পাকিস্তান সুপার লিগে আসিফ খেলেন ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের হয়ে। সেই দলের পক্ষ থেকে আসিফএর পরিবার পরিজনের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় শোক প্রকাশ করেছেন তাঁর জাতীয় দলের সতীর্থ শাদাব খানও।

পাকিস্তানের বিশ্বকাপের প্রাথমিক বাছাই ১৫ জনের দলে জায়গা হয়নি আসিফের। তবে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সদ্য সমাপ্ত একদিনের সিরিজে তিনি দলে ছিলেন। প্রথম ম্য়াচ বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ার পর বাকি চার ম্যাচেই তিনি প্রথম একাদশেও জায়গা করে নিয়েছিলেন। ৩৫.৫ গড়ে ১৪২ রান করেন। রবিবার শেষ ম্যাচে তিনি করেন ১৭ বলে ২২ রান। পুরোপুরি নিশ্চিত না হলেও অনেকেই মনে করেন, ২৩ মে চুড়ান্ত ১৫ জনের দল ঘোষণার দিন পাকিস্তান দলে দেখা যেতে পারে তাঁর নামও।