সচিন তেন্ডুলকরকেই ইমরান খান বানিয়ে ছাড়লেন পাক সরকারের এক শীর্ষ আমলা। তিনি আবার যে সে আমলা নন, খোদ পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিশেষ সহকারী নইম উল হক এমন বিপত্তি পাকালেন। যার জেরে হেসে খুন টুইটার ব্যবহারকারীরা। 

বৃহস্পতিবার একট পুরনো ছবি টুইটারে পোস্ট করেন ইমরান খানের সহকারী। সেখানে এক কিশোর ক্রিকেটারকে ব্যাট হাতে দেখা যাচ্ছে। তার সঙ্গে নইম লেখেন, '১৯৬৯ সালে ইমরান খান'। আসলে ইমরান খান বলে দাবি করে নইম যে ছবিটি পোস্ট করেন, সেটি সচিন তেন্ডুলকরের পুরনো একটি ছবি।

 

স্বভাবতই নইমের ভুল ধরতে বেশি সময় নেননি নেটিজেনরা। একজন বিরাট কোহলির ছোটবেলার ছবি পোস্ট করে একজন লিখেছেন, '১৯৭৬ সালের ইনজামাম উল হক'! আবার হাই তোলা একটি শিশুর ছবি পোস্ট করে একজন বিদ্রুপ করে লিখেছেন, 'সরফরাজ ১৯৮৭'। প্রসঙ্গত ভারতের বিরুদ্ধে চলতি বিশ্বকাপের ম্যাচেই কিপিং করার সময় হাই তুলতে দেখা যায় পাক অধিনায়ককে। তার পরে তিনিও ব্যাপক ব্যঙ্গ, বিদ্রুপের শিকার হন। 

তবে এত ট্রোলড হলেও নিজের পোস্ট করা ছবিটি সরাননি ইমরানের সহকারী। গোটা দুনিয়া যাই বলুক না কেন, সচিনের ছবিকে ইমরান বলে ভাবতে কোনও রকম সংশয় নেই তাঁর। এতে পাক প্রধানমন্ত্রী কতটা প্রসন্ন হয়েছেন, তা অবশ্য জানা যায়নি।