বৃহস্পতিবার ছিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভা। সভায় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে নিয়ে তোলপার হওয়ার কথা শোনা যাচ্ছিল আগে থেকেই। তবে এখনও পর্যন্ত যা খবর তাতে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে নিয়ে তেমন কোনও সমস্যাই তৈরি হয়নি বর্তমান বিসিসিআই প্রেসিডেন্টকে নিয়ে। বরঞ্চ বিবাদে না গিয়ে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভায়। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কি কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হল বিসিসিআই এজিএমে।

আইসিসিতে বিসিসিআই ডিরেক্টর সৌরভ-
সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আইসিসি-তে বিসিসিআইয়ের ডিরেক্টর হিসেবে বিবেচিত নাও হতে পারেন এই জল্পনা। চলছিল। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় একাধিক বিজ্ঞাপন সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হওয়া নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে এজিএমে এমনটাও শোনা যাচ্ছিল। তবে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে আরও একবার আইসিসি-তে ভারতীয় বোর্ডের ডিরেক্টর হিসেবে বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির নাম মনোনীত করা হয়েছে। বিকল্প ডিরেক্টর হিসেবে থাকবেন বোর্ড সচিব জয় শাহ। আইসিসি-র চিফ এগজিকিউটিভ কমিটিতে আগের মতোই বোর্ডের প্রতিনিধিত্ব করবেন শাহ। ফলে সৌরভেই আস্থা বিসিসিআইয়ের একথা পরিস্কার।

টি২০ বিশ্বকাপের কেন্দ্র নির্বাচন-
আগামি বছর ভারতের মাটিতে বসতে চলেছে টি২০ ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ইতিমধ্যেই যার প্রাথমিক প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে বিসিসিআই। বিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভায়  আগামী বছর কোন কোন কেন্দ্রে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচ হবে তাও বেছে নেওয়া হয়েছে।  টি২০ বিশ্বকাপের কেন্দ্র হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে কলকাতা, মুম্বই, আমদাবাদ, ধর্মশালা, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, দিল্লি, মোহালিকে।

১০ দলের আইপিএল-
আইপিএল ২০২০ চলাকালীন বোর্ডের কর্তাদের সঙ্গে একপ্রস্তর আলোচনা সেরে রেখেছিলেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। বার্ষিক সাধারণ সভায় আইপিএলে ১০ দলের সিদ্ধান্তে পড়ল শীলমোহর। তবে ২০২১-এর আইপিএল নয়, ২০২২-এর আইপিএল থেকে ভারতের কোটিপতি লিগে দেখা যাবে আরও ২টি নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি। 

প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের অনুদান-
বিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভায় দেশের সমস্ত প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের জন্য ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ করোনা মহামারীর কারণে সমস্যায় পড়েছেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটাররা। এজিএম মিটিংয়ে নির্ধারিত হয়েছে,কোভিড-১৯ অতিমারিতে ঘরোয়া ক্রিকেট ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় নারী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রথম শ্রেণির সমস্ত ক্রিকেটারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। বিসিসিআইয়ের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন সকল ক্রিকেটাররা। 

৫টি কেন্দ্রে ভাঙা হচ্ছে এনসিএ-কে-
ভারতীয় ক্রিকেটারদের চোটের বিষয়ে সঠিক খবর রাখতে জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিকে ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিসিআই।  বেঙ্গালুরুর অ্যাকাডেমির ওপর থেকে চাপ কমানোর জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এবার থেকে শুধু বেঙ্গালুরুতে নয়, পাঁচটি বিভিন্ন অঞ্চলে থাকবে এনসিএ।