২৯ মার্চ শুরু হওয়ার কথা ছিল আইপিএল। কিন্তু করোনার জেরে আটটি ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে আলোচনা গত মাসেই বিসিসিআইয়ের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত টুর্নামেন্ট। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি যে কোনওভাবেই তা আয়োজনের অনুকূল নয়, তাও স্পষ্ট করে দেওয়া হয়। ফলে চলতি বছর আইপিএলকে কার্যত বাতিলের খাতাতেই ফেলে রেখেছে ক্রিকেট মহলের একাংশ। তবু আশা ছাড়তে নারাজ অনেকেই। আর সেই অগণিত ক্রিকেটভক্তদের কথা মাথায় রেখেই টুর্নামেন্ট আয়োজনে আগ্রহ দেখিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে ভারতীয় বোর্ড সে ইচ্ছেকে বিশেষ আমল দেয়নি। এবার একই পথে হাঁটল ইউএই। 

আরও পড়ুনঃ১৬ মে নতুন শুরু,তার আগে জেনে নিন বুন্দেসলিগার প্রথম দশ দলের অবস্থান

শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড আগেই জানিয়েছে বিসিসিআই চাইলে তারা নিজেদের দেশে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগ আয়োজন করতে প্রস্তুত। এবার একই রকম প্রস্তাব এল সংযুক্ত আরব আমিরশাহির তরফে। এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআইকে প্রস্তাব দিয়েছে আইপিএল আয়োজনের। বিসিসিআইয়ের কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমল নিজেই জানালেন একথা। ধুমল বলেন, ‘সংযুক্ত আরব আমিরশাহি আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছে বোর্ডকে। তবে আপাতত আন্তর্জাতিক উড়ান পরিষেবা যখন বন্ধ, তাই এই মুহূর্তে এই বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।’ আমিরশাহির প্রস্তাব বিসিসিআইয়ের কাছে গুরুত্ব পাচ্ছে কারণ, এর আগেও তারা সাফল্যের সঙ্গে আইপিএলের বেশ কিছু ম্যাচ আয়োজন করেছে। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোটের জন্য ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগের ২০টি ম্যাচ খেলা হয়েছিল আমিরশাহিতে।

আরও পড়ুনঃকরোনা মোকাবিলায় ক্যারেবিয়ান দ্বীপে মানুষের পাশে শাহরুখ খানের দল

আরও পড়ুনঃগড়াপেটা কাণ্ডে পিসিবির দুর্নীতি দমন শাখার সঙ্গে সহযোগিতা করতে নারাজ উমর আকমল

যদিওএ দেশের একমাত্র কোটিপতি লিগের জন্য এখনই হাল ছাড়তে নারাজ ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। বিসিসিআই আশাবাদী করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে ঘরের মাঠেই আয়োজন করা সম্ভব হবে আইপিএল। এর জন্য একাধিক নয়া পন্থার কথাও ভাবনা চিন্তা করছে আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিল ও বিসিসিআই। বিসিসিআইয়ের তরফে তুলনায় নিরাপদ কিছু স্টেডিয়াম চিহ্নিত করার কাজও চলছে।  যেখানে কড়া নিরাপত্তা ও সম্পূর্ণ সুরক্ষা নিশ্চিত করা যায়। কিন্তু সবকিছুই নির্ভর করছে করোনা গতিপ্রকৃতির উপর। একইসঙ্গে বিদেশি উড়ান চালু হওয়াটাও একটা বড় বিষয়। পে সবদিক খতিয়ে দেখেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বিসিসিআইয়ের তরফে। একান্তই যদি পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হয় তখন বিদেশের মাটিতে আইপিএল করা হবে কিনা তা খতিয়ে দেখবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।