রবিবার ত্রিনিদাদে ভারত বনাম ওয়েস্টইন্ডিজ দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচ ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ৫৯ রানে জিতে সিরিজে ১-০ ফলে এগিয়ে গিয়েছে ভারত। বিরাট কোহলি শতরান ও শ্রেয়স আইয়ার দুর্দান্ত ইনিংস খেলার পরেও ভারত কিন্তু এই ম্যাচ হেরে যেতে পারত। নিয়মিত উইকেট হারালেও অনেকক্ষণ পর্যন্ত ওয়েস্টইন্ডিজ কিন্তু জয়ের সরণিতেই ছিল। কিন্তু ভুবনেশ্বর কুমার ৩৫ তম ওভারে মাত্র ৫ মিনিটেই খেলাটা ঘুরিয়ে দেন।

বিরাটের ১২০ রান ও শ্রেয়সের ৭১২ রানের ইনিংসের জোরে ভারত প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ২৭৯ রান করেছিল। গেইল হোপ, তহেতমায়ার লুইসরা ফিরে গেলেও ক্রিজে ছিলেন নিরকোলাস পুরান ও রোস্টন চেজ। শেষ ১২ ওভারে দরকার ছিল ৯১ রান। এখনকার দিনে লক্ষ্যটা খুব একটা বড় ছিল না। কিন্তু এই সময়ই বুবি হাতে বল তুলে দিয়েছিলেন বিরাট।

আর পরের ৫ মিনিটেই ম্য়াচ ঘুরিয়ে দেন ভুবি। পুরান ও চেজ - দুই সেট ব্যাটসম্যানকেই ফিরিয়ে দেন তিনি। প্রথমে আউট হন পুরান। মিড উইকেটে বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। তিন বল পরেই এক দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে চেজকেও প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠান ভুবি।

ভুবনেশ্বরের বলটি লেগ সাইডে ঠেলতে চেয়েছিলেন চেজ। কিন্তু, সময়ের গন্ডোগদোলে বলটি লাগে তাঁর ব্যাটের উপরের কানায়। ভুবনেশ্বর ছিলেন ফলো থ্রুতে। বলটি তাঁর বাঁদিকে অনেকটা পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। সেই অবস্থাতেই বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে বাঁহাতে বলটি লুফে নেন তিনি।    

আচমকা এক ওভারের মধ্যে দুই সেট ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বেকায়দায় পড়ে যায় ওয়েস্টইন্ডিজ। সেখান থেকে আর ফিরতে পারেনি তারা। কার্লোস ব্রেথওয়েট ভুবির পরের ওভারেই আউট হন। শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যের ৫৯ রান আগেই অলআউট হয়ে যায় ওয়েস্টইন্ডিজ।