গত একমাস ধরে লোকসভা নির্বাচন ২০১৯-এর ভোটগ্রহণ পর্ব চলছে। ভোটের বাজারে মোদী, রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে কি বললেন, মমতা মোদীর বিরুদ্ধে কি বললেন - এইসব বিষয়ই ভাইরাল হয়ে থাকে। কিংবা কর্নাটকে প্রধানমন্ত্রীর কালো বাক্স রহস্যের মতো ঘটনার ভিডিওয় ভাইরাল হয়। কিন্তু এক পোলিং অফিসারের ছবি ভাইরাল হচ্ছে এমনটা কখনও শোনা গিয়েছে? ঠিক এই অভূতপূর্ব ঘটনাই ঘটিযে ফেলেছেন এক মহিলা পোলিং অফিসার।

ঘটনাটা কী?

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ছবিতে দেখা যাচ্ছে হলুদ শিফনের শাড়ির সঙ্গে মানানসই স্লিভলেস ব্লাউজ পরা এক মহিলাকে। হাইলাইট করা চুল হালকা হাওয়ায় উড়ছে। চোখ দুটো ঢাকা রোদচশমায়। আর তীব্র রোদের মধ্য়েও মুখে অমলীন হাসি। মনে হতেই পারে ইনি কোনও চিত্র-তারকা বা টেলি-তারকা। কিন্তু তাঁর গলার ব্যাজ আর হাতের ইভিএম যন্ত্র জানান দিচ্ছে তিনি একজন পোলিং অফিসার, চলেছেন জমতার মতগ্রহণ করতে।

সোশ্যাল মিডিয়ার কী দাবি?

তাঁকে নিয়ে আপাতত সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর চর্চা চলছে। তাঁর পরিচয় ও প্রভাব নিয়ে হচ্ছে নানান ধরণের জল্পনা। ফেসবুক ও টুইটারে অনেকেরই দাবি তিনি যে বুথের দায়িত্বে ছিলেন সেখানে ১০০ শতাংশ ভোট পড়েছে। কেউ একটু কমিয়ে বলছেন ৯৮.৫ শতাংশ।

मिलिए उस पीठासीन अधिकारी से, जिसके बूथ में 100% मतदान हुआ था।
😜🤣👇@909_jain @anuview7 @rekha_chaubey @iAnishaKapoor @Pallavi_Singh04 @Sona2kill_ @sunita_s28 @Hema_quotes pic.twitter.com/IfWwudpUBs

— Rajendra Singh Tariyal (चौकीदार) (@RTariy) May 12, 2019

তাঁর সাজপোশাক দেখে কেউ কেউ ধরেই নিচ্ছেন তিনি মায়ানগরী মুম্বইয়ের কোনও বুথের দায়িত্বে ছিলেন।  আবার অনেকের দাবি তিনি জয়পুরের একটি বুথে কর্তব্যরত ছিলেন। তিনি জয়পুরেরই বাসিন্দা। নাম নলিনী সিং। তিনি অতীতে মিসেস জয়পুর খেতাব জিতেছিলেন - এমন দাবিও উঠেছে। এমনকী, তাঁর বুথের ভিডিও নিয়ে তৈরি হয়েছে মিউজিক ভিডিও। তাঁর পরিচয়, ও কোথাকার বুথে তিনি ভোট করিয়েছেন, তাই নিয়ে বিতর্ক থাকলেও বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশে আপাতত ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপে রাজ করছেন তিনি।

*मिलिए उस पीठासीन अधिकारी से, जिसके बूथ में 100% मतदान हुआ था।*
😜🤣👇मतदाता रजिस्टर 27(क) में हस्ताक्षर करती हुई .. मतदान पूर्व तैयारी😛 @Seems3r @desh_bhkt @JayaRjs pic.twitter.com/6ef7gRLSR7

— Vinod Kumar (@vinodkumarbhinc) May 10, 2019

 

তাঁর আসল পরিচয়

অবশেষে লখলউ-এর এক স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে খুঁজে পাওয়া গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া মাতানো মহিলা পোলিং অফিসারকে। জানা গিয়েছে তাঁর আসল নাম রিনা দ্বিবেদী। তিনি লখনউ-এর সেচ বিভাগের কর্মী। লখনউ-এরই নগ্রামের ১৭৩ নং বুথে কর্তব্যপালনের দায়িত্ব ছিল তাঁর। গত ৫ মে তারিখে ওই স্থানীয় সংবাদপত্রেরই এক চিত্র-সাংবাদিক তাঁর বুথে যাওয়ার ছবি তুলেছিলেন। ওই পত্রিকাতে প্রকাশ পাওযার পরই রিনা দ্বিবেদীর ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়ে।

কি বলছেন তিনি?

রিনা জানিয়েছেন আপাতত তিনি প্রায় সেলিব্রিটি হয়ে উঠেছেন। রাস্তায় বের হলে অনেকেই তাঁকে চিনতে পারছেন, একসঙ্গে সেলফি তোলার ইচ্ছা প্রকাশ করছেন। তবে সোশ্যাল মিডিয়া তাঁকে যতটা সফল পোলিং অফিসার হিসেবে ধরে নিয়েছে, ততটা সাফল্য তিনি পাননি বলে স্বীকার করেছেন রিনা। জানিয়েছেন তাঁর বুথে আসলে ভোট পড়েছিল ৭০ শতাংশ।