রাজ্য়ের তিন জেলায়, নয়টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে। কিন্তু তা কত দূর অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ তাই নিয়ে প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গতকালই নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরাকে চিঠি লিখে জানিয়েছিলেন তিনি চান অন্তত  শেষ,দাফাটা যাতে সুষ্ঠু এবং নির্বিঘ্ন হয়  কিন্তু এদিন ভোট শুরু হতেই দেখা গেল রাজ্যের চারিদিকেই বিচ্ছিন্ন হিংসার পরিবেশ জারি হয়েছে। অভিযোগের তীর কিন্‌তু মুখ্যমন্ত্রীর নিজের দলের দিকেই।

বহিরাগতদের তান্ডবে ইসলামপুরের মাদারিপুরে ছড়ালো ব্যাপক হিংসা ছড়াল ভোট শুরু হতে না হতেই। একদল বহিরাগত দুষ্কৃতী ইসলামপুরে ভোটারদের ভয় দেখাতে শুরু করে। বিরক্ত ভোটাররা ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন। পরিস্থিতি সামাল দিতে দ্রুত পৌঁছে যায় কুইক রেসপন্স টিম। কিন্তু তাঁরা চলে যেতেই ফের শুরু হয় তাণ্ডব। স্থানীয় মানুষের অভিযোগের আঙুল তৃনমূলের দিকেই। ব্যাপক বোমাবাজি ও সংঘর্ষের সময় একজন সাংবাদিকওআহত হয়েছেন। এ যাবৎ পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করেছে।

অন্য দিকে বোমাবাজি করে রবীন্দ্র সরণি থেকে চম্পট দিল একদল দুষ্কৃতী। দিন দুয়েক আগেই এখান থেকে প্রচুর টাকা উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এদিন ভোট শুরু হতেই বাইকে করে মুখে কাপড় বেঁধে রবীন্দ্র সরণিতে আসে একদল দুষ্কৃতী। বোমাবাজি করেই দ্রুত এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় তারা। 

সমস্যা শুরু হয়েছে ভাঙর এলাকাতেও। সেখানে এদিন যাদবপুর কেন্দ্রের প্রার্থী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য গেলে তাঁকে ঘিরে ধরে একদল তৃণমূল কর্মী। দাবি, তাঁকে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হবে না।

শেষ পাওয়া খবরে যাদবপুরে ৮২ এবং ৮৩ নম্বর বুথে অশান্তি শুরু হয়েছে নতুন করে। অভিযোগ স্থানীয় তৃণমূল নেতা তপন দাশগুপ্ত বুথ জ্যাম করতে চাইছেন সদলবলে।