আগেই শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়েছিলেন। রবিবার সরাসরি ফোন করে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফেরার জন্য নরেন্দ্র মোদীকে অভিনন্দন জানালেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। একই সঙ্গে ইমরান মোদীকে জানান, দু' দেশের উন্নতির লক্ষ্যে একযোগে কাজ করার জন্য তিনি মুখিয়ে আছেন। 

ভারতের বিদেশমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ফোন করে অভিনন্দন জানানোর জন্য পাল্টা ইমরানকেও ধন্যবাদ জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। বিদেশমন্ত্রক থেকে জারি করা বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, "মোদী সরকারের নীতিই হচ্ছে প্রতিবেশীদের অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করা। সেই লক্ষ্যের কথা মাথায় রেখে পাক প্রধানমন্ত্রীকে একসঙ্গে দারিদ্র দূরীকরণের বার্তা দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। এই অঞ্চলে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে শান্তি, সমৃদ্ধি এবং উন্নতি বজায় রাখতে গেলে যে হিংসা এবং সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশ গড়ে তোলা জরুরি, সে বিষয়েও জোর দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।"

পাকিস্তানের পক্ষ থেকে তাদের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র টুইট করে জানান, মোদীর শান্তি বার্তার জবাবে পাক প্রধানমন্ত্রীও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় শান্তি, উন্নতি এবং সমৃদ্ধির জন্য তাঁর লক্ষ্যের কথা বলেছেন। এই উদ্দেশ্যগুলি সফল করতে তাঁর সঙ্গে তিনি কাজ করতে চান বলেও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীকে জানান ইমরান। 

পুলওয়ামা হামলা এবং তার পরে বালাকোটে ভারতের প্রত্যাঘাতের পরে ভারত-পাক সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছিল। কথার লড়াইতে জড়িয়েছিলেন দু' দেশের প্রধানমন্ত্রী। ভারতকে রীতিমতো হুমকিও দেন ইমরান। যদিও সেই তিক্ততা আপাতত অতীত। এপ্রিল মাসেই ইমরান দাবি করেছিলেন, মোদী সরকার ভারতে ক্ষমতায় ফিরলে আলোচনার মাধ্যমে কাশ্মীর সমস্যার সমাধানের সম্ভাবনা বেশি বলেই তিনি মনে করেন।