গোপীবল্লভপুরের জনসভা থেকে রণং দেহী মেজাজে অবতীর্ণ হলেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। তমলুকের সভা থেকে নরেন্দ্র মোদী অভিযোগ জানিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অহংকারী তাই ফোন ধরেন না। কয়েক মুহুর্তের ব্যবধানে অভিযোগের জবাব দিলেন মমতা। জানিয়ে দিলেন কেন ফণী নিয়ে রাজ্য-কেন্দ্র মিটিং-এ নিমরাজি তিনি। ঘূর্ণীঝড়ে রাজ্যের ক্ষয়ক্ষতি জানতে চেয়ে রাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিল প্রধানমন্ত্রীর দফতর। মমতা বন্দোপাধ্যায়ের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় এই মিটিং সম্ভব নয়। নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত সরকারী আধিকারিকরা। তারপর গোপীবল্লভপুরের মিটিং থেকে বিস্ফোরক মন্তব্য় করেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়।

দেখে নেওয়া যাক কী যুক্তি দিলেন মমতা।

১ এই মিটিং তো পূর্ব নির্ধারিত ছিল।  উনি শুধু ফণীর জন্যে উড়ে আসেননি।

২প্লেন এসে নামবে কলাইকুন্ডা তক্ষুনি যেতে হবে  আমি কি চাকরবাকর?

৩ আপনি যখন কলকাতার কথা বলছিলেন আমি ছিলাম খড়্গপুরে। 

৪আপনি নির্বাচন মিটিং করতে আসছেন আমি কেন যাব।

৫ আমি নির্বাচনী মঞ্চ আপনার সঙ্গে শেয়ার করব না। আমি আপনাকে প্রধানমন্ত্রী মানি না। 

৬ আগে ট্যুইটে দেন, তারপর মিটিং ঘোষণা করেন। গোপীবল্লভপুর, ঝাড়গ্রাম, বেলপাহাড়ি, লালগড়, নেতাই কাঁদছিল যখন কোথায় ছিলেন?

৭  কুড়ি বছরের সমস্যা আমরা সমাধান করেছি গত সাত বছরে। ভোট চাইতে এসেছেন, গত বন্যায় দেখা করে টাকা চেয়েছিলাম একটা পয়সা দেননি। আজ যা হয়েছে, তা আমি দেখে নেব। আপনার থেকে নেব না। আপনি এক্সপায়ারড মিনিস্টার।

৮ ফেডারেল স্ট্রাকচারে চিফ মিনিস্টারকে বাদ দিয়ে মিটিং-এর পরিকল্পনা করছেন, নাটক করে কী লাভ। দিদি প্লেনে করে বাংলা দেখে না। লোকে গরমে কষ্ট পাচ্ছে আপনি বিমানে ঘুরছেন।