সম্ভাবনা ছিলই, দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের সঙ্গে বাংলা থেকে জয়ী দলের সাংসদদের বৈঠকের পরে সেই সম্ভাবনাই আরও জোরালো হল। বাংলা থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় প্রতিনিধির সংখ্যা যে বাড়ছে তা একরকম নিশ্চিত। হাওয়া ভাসছে বাংলা থেকে বিজেপি-র টিকিটে বিজয়ী বেশ কয়েকজন সাংসদের নাম। 

লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ থেকে বিজেপি দুর্দান্ত ফল করার পর এরাজ্যে নিজেদের ভিত আরও মজবুত করাই লক্ষ্য নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের। বিজেপি-র পরের লক্ষ্য এ রাজ্যে ক্ষমতায় আসা। তাই স্বভাবতই বাংলা থেকে মোদী মন্ত্রিসভায় প্রতিনিধির সংখ্যা যে বাড়বে এটা প্রত্যাশিতই ছিল। এখন জল্পনা হচ্ছে মোদি মন্ত্রিসভায় বাংলা  থেকে কতজন এবং কোন কোন জয়ী বিজেপি সাংসদরা সুযোগ পাবেন। 

শনিবার বাংলা থেকে বিজয়ী বিজেপি সাংসদরা দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করেন। সেই বৈঠকের পরে বিজেপি সূত্রে পাওয়া খবর থেকে জানা যাচ্ছে, রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মন্ত্রী হওয়া অনেকটাই নিশ্চিত। তাছাড়াও সম্ভাব্য তালিকায় রয়েছে আরও বেশ কিছু নতুন মুখ।

প্রথম মোদী মন্ত্রিসভায় এরাজ্যে থেকে জয়ী দুই বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় এবং সুরেন্দ্র সিংহ অহলুয়ালিয়া জায়গা পেয়েছিলেন। এবারের মন্ত্রিসভাতেও ওই দু' জনেরই থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, এছাড়াও বাংলা থেকে প্রথমবার জয়ী রানাঘাট কেন্দ্রের সাংসদ জগন্নাথ সরকার, হুগলি থেকে জয়ী লকেট চট্টোপাধ্যায়, বাঁকুড়া থেকে জয়ী সুভাষ সরকার এবং জলপাইগুড়ির সাংসদ জয়ন্ত রায়ের নামও মন্ত্রিত্বের জন্য বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বের বিবেচনায় রয়েছে। 

যদিও এখনই এবিষয়ে প্রকাশ্যে কিছু বলতে চাইছেন না বিজেপি নেতারা। মুকুল রায় রবিবারও দাবি করেছেন, এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন নরেন্দ্র মোদী। আর বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ভোটে জয়ের পরেই বলেছিলেন, তাঁরা মন্ত্রিত্ব নিয়ে ভাবছেন না, এখন তাঁদের প্রথম লক্ষ্য তৃণমূল সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করা।